করোনার কারণে বিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও ইউএনও ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার নিষেধ অমান্য করে ম্যানেজিং কমিটি, শিক্ষক ও অভিভাবকদের নিয়ে সমাবেশ করলেন প্রধান শিক্ষক।

মঙ্গলবার কাউখালীর নিলতী সম্মিলিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ওই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। করোনা-পরবর্তী সময়ে শিক্ষার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্দেশে ওই সভা ডাকেন বলে প্রধান শিক্ষক জানান। ওই সমাবেশে উপস্থিত অভিভাবকদের সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীদেরও ডেকে কাজ করানো হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

কমিটি গঠন নিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অভিভাবকরা জানিয়েছেন, কোনো বিশেষ কারণে অভিভাবকদের স্বাক্ষর নেওয়া হয়েছে।

নিলতী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কমিটি গঠনসহ নানা সমস্যা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ রয়েছে। বর্তমানে বিদ্যালয়ের অ্যাডহক কমিটি রয়েছে। মঙ্গলবার ওই কমিটির নির্দেশে প্রধান শিক্ষক অভিভাবক ও শিক্ষকদের সমন্বয়ে সভার আয়োজন করেন।

করোনাকালে যেখানে বিদ্যালয় বন্ধ, সেখানে সভা করার বিষয়টি নিয়ে এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে ইউএনও খালেদা খাতুন রেখার নির্দেশে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বিনয় চাকী সমাবেশ না করার নির্দেশ দেন।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক অবিনাশ বড়াল বলেন, আমাকে কমিটি নির্দেশ দিয়েছে সমাবেশ করার জন্য। এ নির্দেশ অমান্য করলে চাকরি থাকবে না, তাই সমাবেশ করতে বাধ্য হয়েছি। সরকারি নির্দেশ না মানলে একটা কিছু করা যাবে। সাদা কাগজে স্বাক্ষর বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শুধু সাদা কাগজে নয়, রেজুলেশন খাতায়ও স্বাক্ষর নেওয়া হয়েছে। সবই তো বুঝেন, এলাকায় সমস্যা নিয়েই কাজ করতে হয়।

মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বিনয় চাকী বলেন, তিনি ছুটিতে রয়েছেন। এর পরও ইউএনওর নির্দেশ পেয়ে সমাবেশ না করার জন্য বারবার বলা হয়েছে। আমি ইউএনওর কথা উল্লেখ করে বলেছি। প্রধান শিক্ষক সে কথারও কোনো গুরুত্ব দেননি।

এ বিষয়ে ইউএনও খালেদা

খাতুন রেখা বলেন, খবর পেয়ে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দিয়ে নিষেধ করা হয়েছে। সরকারি নির্দেশ অমান্য করে সমাবেশ করায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন