খেলতে গিয়ে কারখানার বর্জ্যের ট্যাঙ্কে পড়ে যায় চার বছরের রোহিত বাগচি। তাকে উদ্ধার করতে নামেন মা রুলি বাগচি (২৭) নিজেই। কিন্তু তারা উঠে না আসায় তাদের উদ্ধারে নামেন কারখানার নিরাপত্তাকর্মী হৃদয় মিয়া (২২)। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি কারও। তিনজনের মর্মান্তিক মৃত্যুর এই ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহের ভালুকায়। বুধবার রাতে তাদের লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকারী দল।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ভালুকা উপজেলার ধীতপুর ইউনিয়নের বহুলি এলাকার প্রভিটা ফিড কোম্পানির মুরগির বর্জ্যের ট্যাঙ্কের ঢাকনার ভাঙা অংশ দিয়ে পড়ে যায় সজল বাগচির ছেলে রোহিত। ভালুকা ও ত্রিশাল থানার পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা বিকেলে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে রাত ৯টার দিকে ওই তিনজনের লাশ উদ্ধার করে। ট্যাঙ্কের ভেতরে গ্যাসের সৃষ্টি হয়ে তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান উদ্ধারকর্মীরা।

রুলি বাগচিদের বাড়ি মিঠাপুকুর উপজেলার বলদিপুকুরপাড় এলাকায়। প্রভিটা ফিডের কারখানায় তারা স্বামী-স্ত্রী কাজ করতেন। নিরাপত্তাকর্মী হৃদয় মিয়া মিঠাপুকুরের রানীপুকুর তাজনগর গ্রামের আনু মোহাম্মদের ছেলে।

মন্তব্য করুন