একদিন ভোরবেলা পাখির কলকাকলিতে ঘুম ভাঙে পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খালেদা খাতুন রেখার। জানালায় দিয়ে উঁকি দিয়ে দেখতে পান, তার বাসার চারদিকের গাছে প্রচুর পাখি ডাকাডাকি করছে। বেলকনিতে বের হওয়ার পর দেখতে পান, নানা প্রজাতির পাখি অস্থির হয়ে কিচিরমিচির করছে। তারা যেন তাকে ঘিরে ধরেছে। তিনি ভাবতে থাকেন পাখিগুলো এত ডাকাডাকি করে কেন। তাদের কোনো সমস্যা হচ্ছে কিনা। এ সময় কয়েক বাটি চাল নিয়ে তার বাসার রান্নাঘরের ছাদের ওপর ছিটিয়ে দেন তিনি। পাখিগুলো হুমড়ি খেয়ে পড়ে। পেট ভরে খেয়ে এক সময় পাখিগুলো চলে যায়। এ অবস্থা দেখে তার মধ্যে পাখিগুলোর জন্য মায়া জন্ম নেয়। পাখির প্রেমে পড়ে যান তিনি। ভাবতে থাকেন পাখিগুলো কোথায় গিয়ে থাকে, ওদের আশ্রয়স্থল আছে কিনা। আমাদের সমাজে মানুষের বসবাসের জন্য আমরা কত কী করি। কিন্তু পাখিগুলো কোনো না কোনোভাবে আমাদের পরিবেশের জন্য ওদের সাধ্যমতো সহায়তা করছে। এতে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা হচ্ছে। অথচ ওদের জন্য আমরা কিছুই করছি না। এই চেতনাবোধ থেকে তিনি স্থির করেন পাখিদের জন্য বাসস্থানের ব্যবস্থা করা যায় কীভাবে। একপর্যায়ে সোনাকুর মৃৎপল্লি থেকে মাটির হাঁড়ি কিনে তা সুন্দর করে কেটে গাছের ডালে টানিয়ে দেওয়া শুরু করেন। নিজের সরকারি বাসভবন থেকে শুরু করে উপজেলা সদরের কলেজপাড়া, ইকোপার্ক, আবাসন এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে পাখির বাসা বানিয়ে দিয়েছেন তিনি। আরও বাসা তৈরি জন্য তার বাসার সামনে অনেক হাঁড়ি জমা রয়েছে।

করোনাকালে কর্মহীন মানুষের বাড়ি বাড়ি খাবার পৌঁছে দেওয়া, শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণ ও সরকারি বই বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়া, অসহায় মানুষের সেবা দান, পথহারা মানুষকে সেবা দেওয়াসহ নানা সেবামূলক কাজ করে চলেছেন তিনি। শুধু মানুষই নয়, পশুপাখির পাশেও নিজের সাধ্যমতো দাঁড়ান এই মমতাময়ী ইউএনও। নিজের পেশাগত দায়িত্বের পাশাপাশি এসব মানবিক কর্মকাণ্ড করে থাকেন তিনি। কথাগুলো বলছিলেন কাউখালীর সমাজসেবক আব্দুল লতিফ খসরু। তিনি বলেন, এ কারণে যখনই সুযোগ পাই তখনই ইউএনওর সেবামূলক কাজে সহায়তা দিতে এগিয়ে আসি।

কাউখালীর ইউএনও খালেদা খাতুনের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, আমরা মানুষের জন্য কত কী করছি। এর পরও মানুষের চাওয়া-পাওয়ার শেষ নেই। কিন্তু পাখিগুলোর মনে কী কষ্ট, কী ওদের চাহিদা তা আমরা জানি না বা জানার কোনো পদ্ধতিও আমাদের জানা নেই। ওরাও পৃথিবীর পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় কাজ করে। একজন মানুষের যেমন মৌলিক অধিকার রয়েছে। পশুপাখিরও তেমন মৌলিক অধিকার রয়েছে। এসব উপলব্ধি থেকে পাখিদের প্রতি এ মমত্ববোধ। এ পর্যন্ত তিন শতাধিক বাসা তৈরি করে দিয়েছি। আরও কিছু বাসা তৈরির মালপত্র আনা হয়েছে। আমার দায়িত্ব পালনের

ফাঁকে ফাঁকে লোকজন নিয়ে কাজগুলো করি।

মন্তব্য করুন