লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে অজ্ঞাত রোগে মহিষ মারা যাওয়ার সংবাদ সমকালে প্রকাশের পর প্রাণিসম্পদ দপ্তরের বিশেষজ্ঞ দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। সম্প্রতি ঢাকা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে চার সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ দল উপজেলার চরফলকন এলাকা পরিদর্শন করে আক্রান্ত মহিষসহ এ রোগে মারা যাওয়া মহিষ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে যায়।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর সূত্রে জানা যায়, সমকালে খবরটি প্রকাশের পর চার সদস্যের বিশেষজ্ঞ দল ওই এলাকা পরিদর্শনে যায়। এর নেতৃত্বে ছিলেন প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব বিভাগের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. সুকেশ চন্দ্র বৈদ্য।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. আক্তারুজ্জামান বলেন, বিশেষজ্ঞ দলটি আক্রান্ত মহিষসহ এ রোগে মারা যাওয়া মহিষ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য গবেষণাগারে পাঠিয়েছে। দ্রুত রোগ নির্ণয়ের ফল পাওয়া যাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। তিনি আরও জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, লবণাক্ত পানি পান ও খাদ্যের অভাবে অপুষ্টিতে ভোগার কারণে এ রোগটি দেখা দিয়েছে। এ বিষয়ে মহিষ মালিকদের নিয়ে সচেতনতামূলক সভা করা হয়েছে। সভায় তাদের মহিষের জন্য সুপেয় পানি ও সবুজ ঘাসের ব্যবস্থার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়।

লক্ষ্মীপুরের কমলনগর ও রামগতিতে গত দুই মাসে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে দুই শতাধিক মহিষের মৃত্যু হয়। এতে মহিষ মালিকরা প্রায় দেড় কোটি টাকার ক্ষতির শিকার হন। এ নিয়ে ২৬ এপ্রিল সমকালের লোকালয় পাতায় 'অজ্ঞাত রোগে মরল দুই শতাধিক মহিষ' শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

মন্তব্য করুন