বাঁশখালী উপজেলার শেখেরখীল ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকায় মাদক কারবারিরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এতে এলাকার তরুণ সমাজ দিনের পর দিন মাদকাসক্ত হয়ে বিপথগামী হয়ে পড়ছে। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. ইয়াছিন মাদক কারবারিদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিলে তার বিরুদ্ধে কুৎসা রটানোসহ তাকে হত্যার চেষ্টা করে যাচ্ছে মাদক কারবারি সিন্ডিকেট।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত সোমবার রাত ১২টার দিকে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় থেকে কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে স্থানীয় আবদুল্লাহর দোকান নামক স্থানে হত্যার উদ্দেশ্যে চেয়ারম্যান ইয়াছিনের ওপর সশস্ত্র আক্রমণ চালায় মাদক কারবারিরা। এ সময় সাত-আট রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে ওই মাদককারবারি সিন্ডিকেটের সদস্যরা। পরে খবর পেয়ে বাঁশখালী থানা পুলিশের এসআই নাজমুল হক ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে মাদক কারবারিদের কবল থেকে চেয়ারম্যান ইয়াছিনকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসেন। এ ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৫টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত চেয়ারম্যান ইয়াছিন বাদী হয়ে বাঁশখালী থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

স্থানীয়রা জানান, শেখেরখীল ইউপির ৩নং ওয়ার্ডের বদিউল আলমের ছেলে আবদুর রশিদ ওরফে ভেট্টা ডাকাতের নেতৃত্বে ২০-৩০ জনের একটি মাদক কারবারি সিন্ডিকেট রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে ওই সিন্ডিকেট নদীপথে রাজাখালী ছনুয়া হয়ে ইয়াবার চালান শেখেরখীলে মজুদ করে আসছে। পরে এলাকার নেশাসক্ত যুবকদের মাধ্যমে ওই ইয়াবা বাঁশখালীর বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করে। মাদক কারবারিদের বিরুদ্ধে এলাকার কেউ প্রতিবাদ করলে মারধর ও হামলার শিকার হতে হয় তাদের। এ ছাড়া এই সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগও রয়েছে দীর্ঘদিন থেকে। ওই সিন্ডিকেটের মূল হোতা আবদুর রশিদের বিরুদ্ধে বাঁশখালীসহ বিভিন্ন থানায় মোটরসাইকেল চুরি ও নানা অপরাধে একাধিক মামলাও রয়েছে।

শেখেরখীল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ইয়াছিন বলেন, ৩নং ওয়ার্ডের বোচারপাড়া এলাকার বদিউল আলমের ছেলে আবদুর রশিদ দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় ডাকাতি, মোটরসাইকেল চুরি ও ইয়াবা কারবারের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে সম্পৃক্ত। এছাড়া মাদক কারবারে রয়েছে তার একটি বিশাল সিন্ডিকেট। একাধিক মোটরসাইকেল চুরির ঘটনায় ইতোপূর্বে অনেকবার জেলও খেটেছে আবদুর রশিদ। স্থানীয় জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিলে সে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে পরপর কয়েকবার হামলা চালিয়েছে।

বাঁশখালী থানার ওসি মোহাম্মদ সফিউল কবীর বলেন, আবদুর রশিদের বিরুদ্ধে মোটরসাইকেল চুরির একাধিক মামলা রয়েছে। মাদক কারবারিদের বিষয়ে পুলিশ তদন্ত করছে। শিগগিরই তাদের মূল উৎপাটন করা হবে।

মন্তব্য করুন