কালিয়ায় রাজু চৌধুরী নামে এক কিশোরকে চোর সন্দেহে আটকের পর নির্যাতনের ঘটনার সাড়ে ৫ মাস পর মামলা হয়েছে। উপজেলার বাঐসোনা ইউপির চেয়ারম্যান ও উপজেলার নড়াগাতি থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. ফোরকান মোল্যাসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে এ মামলা হয়েছে।

উপজেলার পদ্মবিলা গ্রামের কায়েম চৌধুরীর ছেলে রাজুকে চেয়ারম্যান চড়-থাপ্পড় ও লাথি মারার সাড়ে ৫ মাস পর গত রোববার ওই নির্যাতনের ঘটনার একটি ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। গত সোমবার রাতে রাজুর বাবা বাদী হয়ে নড়াগাতি থানায় মামলাটি করেন। মামলার পর থেকে চেয়ারম্যান ফোরকান মোল্যাসহ আসামিরা পলাতক রয়েছেন।

পুলিশ জানায়, গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর সকাল ৯টার দিকে রাজু পাশের গ্রাম জলাডাঙ্গায় তার আত্মীয়ের বাড়ি যাওয়ার সময় মধুপুর মহাশ্মশানে পৌঁছলে অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তি রাজুকে সুপারি চোর সন্দেহে আটক করে তার ওপর নির্যাতন শুরু করে। একপর্যায়ে মধুপুর গ্রামের লোকজনসহ বাঐসোনা ইউপির চেয়ারম্যান ফোরকান মোল্যা ঘটনাস্থলে এসে তাকে নির্যাতন করেন। নির্যাতনকালে অজ্ঞাত ব্যক্তি এর ভিডিও ধারণ করে। এ ঘটনার সাড়ে ৫ মাস পর 'শাহ মো. ফোরকান মোল্যা' নামের একটি ফেসবুক আইডিতে ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়লে সেটি ভাইরাল হয়। এরপর সোমবার রাতে রাজুর বাবা কায়েম চৌধুরী ফোরকান মোল্যা ও তার চাচাতো ভাই শাহীন মোল্যাসহ অজ্ঞাতপরিচয় একজনকে আসামি করে মামলাটি করেন।

সরেজমিন উপজেলার মধুপুর গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রায় ৪-৫ মাস আগে ওই গ্রামের বাসিন্দারা রাজুকে চোরাই সুপারি ও বস্তাসহ হাতেনাতে আটক করে। তারা ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মো. ফোরকান মোল্যাকে খবর দিলে তিনি ঘটনাস্থল মধুপুর মহাশ্মশানে এসে রাজুকে জনরোষ ও গণধোলাই থেকে বাঁচিয়ে চড়-থাপ্পড় ও একটি লাথি মেরে ছেড়ে দেন।

কায়েম চৌধুরী বলেন, আত্মীয়ের বাড়িতে যাওয়ার সময় তার নির্দোষ ছেলের ওপর নির্যাতন চালানো হয়েছে। তিনি নির্যাতনকারীদের শাস্তি দাবি করেছেন।

বাঐসোনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ মো. ফোরকান মোল্যা জানান, জনতার হাতে আটক চোরকে লোক দেখানো চড়-থাপ্পড় দিয়ে জনরোষ ও গণধোলাই থেকে রক্ষা করা হায়েছে। সেটির ভিডিও ধারণ করে আমার রাজনৈতিক ও পারিবারিক সুনাম নষ্ট করতে ঘটনার প্রায় ৫ মাস পর আমার নামে ফেক আইডি খুলে ষড়যন্ত্রকারীরা ভিডিওটি ফেসবুকে ছেড়ে দিয়েছে।

নড়াগাতি থানার ওসি রোকসানা খাতুন বলেছেন, চোর সন্দেহে কিশোর নির্যাতনের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান ফোরকান মোল্যাসহ ৩ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান চলছে।

মন্তব্য করুন