ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে কেশবপুরে এক বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার সন্ধ্যার এ ঘটনায় ওই পরিবারের তিন নারীসহ চারজন আহত হয়েছেন। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার রাতে ইউপি সদস্যসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, কেশবপুরের গৌরীঘোনা ইউনিয়নের ভেরচী দাসপাড়ার চায়না রানী দাস একটি গাছ থেকে জামরুল পেড়ে খাওয়ায় গাছের মালিক তার ভাশুর অশোক দাস তাকে মারধর করে। এ সময় তার ছেলে সুমন দাস প্রতিবাদ করলে দু'পক্ষে সংঘর্ষ বাধে। এতে অশোক ভেরচী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আসাদুজ্জামানের কাছে অভিযোগ দেন। ইউপি সদস্য সুমনকে ওই এলাকার একজন আওয়ামী লীগ নেতার বাড়িতে যেতে বলেন। সুমন সেখানে গেলে তিনি তাকে মারধরের হুমকি দিয়ে শনিবার সন্ধ্যায় বাবা-মাকে নিয়ে মুক্তি সংঘে সালিশে হাজির থাকার নির্দেশ দেন।

শনিবার সন্ধ্যায় সালিশে উপস্থিত না হওয়ায় রাত সাড়ে ১০টার দিকে ইউপি সদস্য আসাদুজ্জামান একাধিক মোটরসাইকেলে কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে চায়না দাসের বাড়িতে গিয়ে চায়না দাস, তার স্বামী গোবিন্দ দাস, মেয়ে লক্ষ্মী দাস ও ননদ পারুল দাসকে মারধর করেন। ইউপি সদস্য আসাদুজ্জামান বলেন, শুধু গোবিন্দকে একটি চড় মারা হয়েছে।

মন্তব্য করুন