কোনো প্রকার মাচা বা খুঁটি ছাড়াই মাঠ ফসলের মতো চাষ করা যায়- এমন খাটো শিমের নতুন দুটি জাত উদ্ভাবন করেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। জাত দুটি ছাদ বাগানে টবে চাষ করার জন্য সবচেয়ে বেশি উপযোগী। বিইউ খাটো শিম-৮ ও বিইউ খাটো শিম-৯ নামে শিমের দুটি খাটো জাত উদ্ভাবন করেছেন কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগের অধ্যাপক ও পরিচালক (গবেষণা) ড. একেএম আমিনুল ইসলাম। আট বছরের বেশি সময় গবেষণা করে একটি খাটো জাতের সঙ্গে দেশি জাতের সংকরায়ণ-পরবর্তী পিউর লাইন নির্বাচনের মাধ্যমে সম্প্রতি জাত দুটি উদ্ভাবন করা হয়। উদ্ভাবিত জাতগুলো আকার-আকৃতিগত বৈশিষ্ট্য, ফলন, রং, গড়ন, স্বাদ ও পুষ্টিগত গুণাগুণ বিবেচনায় অনন্য বলে জানান এ উদ্ভাবক। শিমের গতানুগতিক জাতগুলো থেকে তার উদ্ভাবিত জাতগুলোকে সহজেই আলাদা করা যায়।

বিইউ খাটো শিম-৮ সম্পর্কে গবেষক ড. একেএম আমিনুল ইসলাম বলেন, একটি বিদেশি খাটো জাতের সঙ্গে দেশি জাতের সংকরায়ণ-পরবর্তী পিউর লাইন নির্বাচনের মাধ্যমে এ জাতটি উদ্ভাবন করা হয়েছে। এটি একটি আলোকসংবেদনশীল ও আগাম জাত। আগাম জাত হিসেবে আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বর মাসে এর বীজ বপন শুরু করা যায়। আর বিইউ খাটো শিম-৯ আগাম জাত হিসেবে আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বর মাসে এর বীজ বপন শুরু করা যায়। এই দুই জাতই সারা বাংলাদেশে চাষ উপযোগী।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. গিয়াসউদ্দীন মিয়া জানান, উদ্ভাবিত শিমের এই জাতগুলো খাটো হওয়ায় মাচা বা খুঁটি ছাড়াই মাঠ ফসলের মতো চাষ করা যাবে। জাতগুলো টবেও চাষ উপযোগী। ফলে নগর বা ছাদ কৃষিতেও অসামান্য অবদান রাখতে সক্ষম হবে।

মন্তব্য করুন