লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চররমিজ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীর ভাইসহ ১২ কর্মী-সমর্থক আহত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বুধবার রাতে ইউনিয়নটির বিবিরহাট বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় চারটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও পাঁচটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোজাহিদুল ইসলাম দিদার অভিযোগ করেন, রাত ৮টার দিকে বাজারের একটি গলিতে তার ভাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবউদ্দিন আলমগীর কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন। ওই সময় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শরাফত আলী ভূঁইয়ার আনারস প্রতীকের সমর্থনে বাজারে মিছিল বের করা হয়। একপর্যায়ে মিছিলকারীরা স্লোগান দিয়ে তাদের ওপর হামলা করে। এতে তার ভাই আলমগীর ও সমর্থক বাবলু আহত হন। পরে দু'পক্ষের মধ্যে বাজারে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। রাত ১১টার দিকে কর্মী-সমর্থক নিয়ে তিনি বাড়িতে যাওয়ার সময় শরাফত আলী ভূঁইয়ার লোকজন আবারও তাদের ওপর হামলা করে। এতে তার সমর্থক মামুন, আলকাছ, সোহেলসহ ১০ জন আহত হন। এ সময় যুবলীগ নেতা আরাফাত সানী ও আলতাফ হোসেনের দোকানসহ চারটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং ছাত্রলীগ নেতা রায়হানের মোটরসাইকেলসহ পাঁচটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী শরাফত আলী ভূঁইয়া অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নির্বাচনে সাধারণ ভোটারদের সমর্থন নিতে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছেন।

বিষয় : চররমিজ ইউপি নির্বাচন

মন্তব্য করুন