কুমিল্লার চান্দিনায় মাদ্রাসাছাত্রীকে ফুসলিয়ে বাড়ি থেকে অন্যত্র নিয়ে দু'দিন আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগে স্থানীয় একটি মসজিদের ইমামকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

গত রোববার রাতে সদর দক্ষিণ উপজেলার হোটেল নূরজাহানের সামনে থেকে আবুল বাশার

(৫০) নামের ওই ইমামকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-১১ সিপিসি-২-এর একটি দল।

কুমিল্লা প্রতিনিধি জানান, বাশার চান্দিনা উপজেলার শব্দলপুর গ্রামের মৃত মোতালেব মুন্সীর ছেলে এবং একই উপজেলার তীরচর নয়াবাড়ি মসজিদের ইমাম। সোমবার দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

র‌্যাব সূত্রে জানা যায়, গত ২২ থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত ইমাম আবুল বাশার ওই মাদ্রাসাছাত্রীকে (১৪) উপজেলার বাইরে নিয়ে

আটকে রেখে ধর্ষণ করে। এতে মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়লে

বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় বাশারকে গ্রেপ্তার করা হয়।

কিশোরগঞ্জ অফিস ও কুলিয়ারচর প্রতিনিধি জানান, কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে প্রেমের একপর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। বিয়েতে অস্বীকৃতি জানানোর জেরে প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে ঘটনার বিবরণ দিলে উল্টো পরিবারটির নির্যাতনের শিকার হয় ছাত্রী। এ ঘটনায় সে কুলিয়ারচর থানায় গত রোববার মামলা করে। তবে অভিযুক্ত যুবক নাজমুল হাসানকে এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। সে কুলিয়ারচরের উছমানপুর ইউনিয়নের নোয়াপাড়া গ্রামের কামাল মিয়ার ছেলে। নির্যাতনে অভিযুক্তরা হলো- নাজমুলের বাবা কামাল মিয়া, মা ফাতেমা বেগম এবং দুই বোন চাঁদনী ও তাঁরা বেগম। নির্যাতনের ভিডিও ফেসবুকে আপলোড করা হলে ভাইরাল হয়ে যায়।

কুলিয়ারচর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মিজানুর রহমান জানান, আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য করুন