বেলাব উপজেলার চরাঞ্চল এলাকা নিয়ে গঠিত ৮ নম্বর চরউজিলাব ইউনিয়ন পরিষদ। দীর্ঘদিন ধরে অস্থায়ী কার্যালয়ে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা করার পর গতকাল শনিবার পরিষদের নতুন ভবন উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি। এ উপলক্ষে অত্র পরিষদের চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান আয়োজন করেন ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানের। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক ও জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু নইম মোহাম্মদ মারুফ খান। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের দাওয়াতপত্রে ও উদ্বোধন অনুষ্ঠানে কমপ্লেক্সের জমিদাতা শিল্পপতি ও আওয়ামী লীগ নেতা এ এইচ আসলাম সানীর নাম না থাকায় এলাকাবাসীর মধ্যে রয়েছে চাপা ক্ষোভ।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্মাণের জন্য ৫০ শতাংশ জমি দান করেন স্থানীয় বাসিন্দা ও নারায়ণগঞ্জ ক্রোনী গ্রুপের চেয়ারম্যান সিআইপি এ এইচ আসলাম সানী। গতকাল শনিবার ছিল ওই ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনের উদ্বোধন অনুষ্ঠান। উদ্বোধন অনুষ্ঠানের দাওয়াতপত্রে রহস্যজনক কারণে জমিদাতা শিল্পপতি এ এইচ আসলাম সানীর নাম দেওয়া হয়নি। এর প্রতিবাদে গত শুক্রবার চরউজিলাব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. আলকাছ মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক মো. বেলায়েত হোসেন বুলবুলের নেতৃত্বে এলাকার কয়েকশ নারী-পুরুষ বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করে। বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন শেষে এক প্রতিবাদ সভায় জমিদাতা হিসেবে সিআইপি এ এইচ আসলাম সানীর নাম না দেওয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামানকে দোষারূপ করে নিন্দা জানানো হয়।

চরউজিলাব ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, জমিদাতা হিসেবে এ এইচ আসলাম সানীর একটি নামফলক কমপ্লেক্স ভবনে টানানো হয়েছে। দাওয়াতপত্রে নাম না দেওয়ার ব্যাপারে তার কোনো হাত নেই বলে তিনি জানান।

জমিদাতা শিল্পপতি এ এইচ আসলাম সানী বলেন, পরিষদের কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের জন্য জমি দিয়েছি। ইউনিয়ন পরিষদ নির্মাণের জায়গা নিয়ে মামলা নিষ্পত্তি করেছি। অথচ ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানের দাওয়াতপত্রে ও উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আমার নাম না দেওয়ায় এটিকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসাই মনে করছি।

মন্তব্য করুন