শিবালয় উপজেলার ৭টি ইউপিতে ৩১ জানুয়ারি ষষ্ঠ ধাপের ভোট হবে। কিন্তু এই নির্বাচনে নৌকার মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে আওয়ামী লীগের ৯ বিদ্রোহী প্রার্থী। এই নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীদের কারণে নৌকার ভরাডুবির আশঙ্কা করছেন সাধারণ ভোটররা।

জানা গেছে, নির্বাচনে জয়ের লক্ষ্যে ব্যাপক প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থীদের সমর্থকরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চান। প্রার্থীরা নিজেদের যোগ্যতার কথা উল্লেখ করে ভোটারদের রাস্তাঘাটের উন্নয়নসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। গ্রামগঞ্জ, হাট-বাজার ও রাস্তাঘাট নির্বাচনী পোস্টারে ছেয়ে গেছে। বর্তমান চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীরা কে কতটুকু এলাকায় উন্নয়ন করেছেন, তা নিয়ে ভোটারদের মধ্যে চলছে আলোচনা-সমোচনা। নতুন প্রার্থীদের কে কতটুকু যোগ্য, তা নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্নেষণ।

অনেকে দলের নির্দেশ অমান্য করে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়েছেন বলে অভিযোগ করছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাকর্মী জানান, অনেক ইউপিতে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের জনপ্রিয় নেতা দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় ক্ষোভে বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন।

শিবালয় ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী এসএমএফ শাহারিয়া হালিম ফকির জানান, জেলা আওয়ামী লীগের অর্থবিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রহিম খান গত সোমবার রাতে শিবালয় ইউনিয়নের নবগ্রামে স্বতন্ত্র প্রার্থী আলাল উদ্দিন আলালের (ঘোড়া) পক্ষে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চাওয়ায় নৌকার ক্ষতি হয়েছে। শিবালয় উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদে ৩৩ জন, সাধারণ সদস্য পদে ২৪২ জন ও সংরক্ষিত ইউপি সদস্য পদে ৮৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত ও বিদ্রোহী প্রার্থীরা হলেন- তেওতা ইউপিতে নৌকার প্রার্থী আবুল বাশার। এই ইউপিতে বিদ্রোহী প্রার্থী হলেন- তেওয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল করিম, আওয়ামী লীগের সদস্য ফজলুর রহমান ও মোশারফ হোসেন।

শিবালয় সদর ইউপিতে নৌকার প্রার্থী এসএমএফ শাহারিয়া হালিম ফকির। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী শিবালয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম, ইউনিয়ন যুবলীগ সদস্য মোহশিন রাজু।

উলাইল ইউপিতে নৌকার প্রার্থী আব্দুল মান্নান খান। এই ইউপিতে কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী নেই। আরুয়া ইউপিতে নৌকার প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান খান মাসুম। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হলেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মোস্তাকিম রহমান খান অনিক।

মহাদেবপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী মহিদুজ্জামান তড়িত। এখানে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক জালাল সরকার।

উথলী ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী আব্বাস আলী। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য মাসুদুর রহমান মাসুদ।

শিমুলিয়া ইউপিতে নৌকার প্রার্থী জহির উদ্দিন মানিক। এই ইউপিতে বিদ্রোহী প্রার্থী হলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল রহমান মৃধা।

জেলা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক আব্দুর রহিম খান বলেন, 'আমি কোনো স্বতন্ত্র প্রার্থীর জন্য ভোট চাইনি। আমি সব ইউনিয়নেই নৌকার জন্য ভোট চাইছি।'

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুস বলেন, দলের নিয়ম ভঙ্গ করে যারা দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন, তাদের তালিকা করে জেলা কমিটির সুপারিশ নিয়ে কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।

শিবালয় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রেজাউর রহমান খান জানু জানান, আওয়ামী লীগের কোনো নেতাকর্মী নৌকা প্রার্থীর বিরুদ্ধে ভোট ও দোয়া চাইলে তার বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন