রেমিট্যান্স বাড়াতে ব্যাংক ফি কমানো হবে :অর্থমন্ত্রী

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০১৭

সিলেট ব্যুরো

প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে ব্যাংকের ফি কমানো হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। আগামী মাসের মধ্যে ফি কমানোর কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, রেমিট্যান্স কমার দুটি কারণ রয়েছে। প্রথমত, বিদেশে প্রবাসীদের সেটেল হওয়ার হার বাড়ছে। তাই অনেকে দেশে টাকা কম পাঠাচ্ছেন। আর প্রবাসীদের একটা অভিযোগ হচ্ছে, টাকা পাঠানোর ফি বেশি। এ জন্য রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে আগামী মাসের মধ্যে ফি কমানো হতে পারে। গতকাল শনিবার সকালে নগরীর নাইওরপুলে সৌন্দর্যবর্ধনের অংশ হিসেবে নির্মিত ফোয়ারার উদ্বোধন শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন।
অর্থ পাচার রোধে কী ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে_ এমন আরেক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, পাচার সারা দুনিয়াতেই হয়। তবে রেটস অব গ্রোথ আমাদের একটু বেশি। এর জন্য আমরাও দায়ী। আমরা এখানে জমির সরকারি মূল্য কমিয়ে রেখেছি। উদাহরণ দিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, কেউ এক কোটি টাকার জমি বিক্রি করলে সেখানে সরকারি দাম ৩০ লাখ, বাকি ৭০ লাখ কালো টাকা হয়ে যায়। তবে পাচার বন্ধে সরকার ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, খুব শিগগির জমির সরকারি দাম বাড়িয়ে বাজারদর করা হবে।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিলেটের
মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার, সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবিব, সিলেট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ প্রমুখ। ব্যাংক এশিয়ার সহায়তায় নির্মিত এই ফোয়ারার নকশা করেছেন স্থপতি বিবস্বান চক্রবর্তী পার্থ। যাতে আবহমানকালের ঐতিহ্য কলসির আদল দেওয়া হয়েছে। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ব্যাংক এশিয়ার ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাফওয়ান চৌধুরীসহ ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে, বিকেলে অর্থমন্ত্রী সিলেটের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের অগ্রগতি পর্যালোচনা করতে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে সভা করেন। এ ছাড়া তিনি প্রধান অতিথি হিসেবে আরও কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন।
ডিসেম্বরে সিলেট কারাগারের উদ্বোধন :আগামী ডিসেম্বরে নির্মাণাধীন সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের উদ্বোধন হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। গতকাল দুপুরে তিনি সদর উপজেলার বাদাঘাটে নির্মাণাধীন কারাগার পরিদর্শনকালে প্রকল্প বাস্তবায়নকারী গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান এ কে আবদুল মোমেন, সিলেটের জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার, সিলেটে গণপূর্ত অধিদপ্তরের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আমিনুল ইসলাম, কারাগারের প্রকল্প পরিচালক আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।