আগুনপাখির আমেনা

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৯      

আবদুল্লাহ আল মামুন

আগুনপাখির আমেনা

মৌটুসী বিশ্বাস

মিডিয়ায় কাজের ক্ষেত্রে গ্রুপিং বা লবিং করতে পারেন না মৌটুসী বিশ্বাস। নিজের অভিনয় যোগ্যতায় যে নির্মাতা তাকে উপযুক্ত মনে করে ডাকেন, তার কাজই করেন। মৌটুসী বিশ্বাস করেন ক্যারিয়ারের শুরুতে এসেই যারা প্রচুর কাজ করে, তারা আবার দ্রুতই হারিয়ে যায়। তিনি হারাননি। টিভি নাটকের এক বিশ্বস্ত নাম মৌটুসী। এরই মধ্যে বিনোদন অঙ্গনে তার দেড় যুগের পথচলা। দীর্ঘ এ সময়ে তাকে নিয়ে স্ক্যান্ডাল নেই যেমন; নেই নির্মাতা বা দর্শকের অভিযোগ। কারণ তার মূল শক্তি হচ্ছে অভিনয়।

তাইতো বলা যায় মৌটুসীর নখদর্পণে টিভি নাটক, বিজ্ঞাপন, চলচ্চিত্র ও উপস্থাপনা- সব মাধ্যমেই সমান সাবলীল তিনি। অথচ তার যাত্রা শুরু হয়েছিল নাচ দিয়ে। কিন্তু নাচ নিয়ে পরিচিত না হলেও খ্যাতি পেয়েছেন অভিনেত্রী হিসেবে। এ নিয়ে তার আক্ষেপ নেই। কারণ অভিনয় তাকে অনেক কিছুই দিয়েছে। সবচেয়ে বেশি দিয়েছে দর্শকের ভালোবাসা। মৌটুসী কাজের ক্ষেত্রে বেশ সচেতন। চিত্রনাট্য, চরিত্র নির্বাচন ও ভালো অভিনয়ের কারণেই তার আজকের এ অবস্থান।

এখন কাজ কম করছেন কেন? মৌটুসীর উত্তর, 'আমি চাইলেই তো আর বেশি কাজ করতে পারব না। আবার সব নাটকেও কাজ করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়। আমার অতীত কাজের দিকে তাকালে বুঝতে পারবেন আমি বরাবরই মাঝামাঝি থেকেছি। বেশি কাজ করিনি আবার কমও করিনি। বেকারও বসে থাকিনি।'

নতুন একটি ধারাবাহিকের কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করছেন মৌটুসী। নাম 'আগুনপাখি'। প্রখ্যাত সাহিত্যিক হাসান আজিজুল হকের একই নামের বই থেকে নেওয়া ধারাবাহিকটি। এটি মূলত তার মা আমেনার জীবনী। সেই আমেনা চরিত্রেই অভিনয় করছেন মৌটুসী। দীপ্ত টিভিতে ধারাবাহিকটি ২০০ পর্ব পর্যন্ত চলবে বলে জানান তিনি। সিরিয়ালের আমেনা হওয়া নিয়ে প্রস্তুতির কথা জানতে চাইলে মৌটুসী বলেন, সাধারণত একটি নাটক বা সিরিয়ালে কাজ করলে সেভাবে প্রস্তুতি নিতে পারি না। কিন্তু এই ধারাবাহিকের পরিচালক পারভেজ আমিন কয়েক মাস আগে থেকেই আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তখনই বইটি পড়ি। কাজটি যেহেতু পিরিয়ডিক, তাই তিনি আরও কিছু রেফারেন্স বই দিয়েছেন। সেগুলো পড়ছি। সব মিলিয়ে পুরোপুরি প্রস্তুত হয়েই কাজটি করছি।

চট্টগ্রামের মেয়ে মৌটুসীর শৈশব ও কৈশোর পার হয়েছে হেসেখেলেই। মা-বাবার একমাত্র মেয়ে হওয়ায় পরিবারে ছিল বেশ আহদ্মাদিপনা। তবে তিনি এ কথা শুনতে নারাজ। তার মতে, পরিবারের একমাত্র মেয়ে হলেও ছেলের কোনো অভাব অপূর্ণ রাখেননি। শৈশব থেকেই বিষম দুরন্তপনা নিয়ে বেড়ে উঠেছেন। তবে শৃঙ্খলার মধ্যে সেটা আবদ্ধ। এতকিছুর পর অভিনয়ে আসা তার কীভাবে হলো? মৌটুসীর মুখেই শোনা যাক। তিনি বলেন, 'মোস্তফা সরয়ার ফারুকী ভাই আমাকে অনেকটা জোর করেই ক্যামেরার সামনে এনে দাঁড় করিয়ে দেন। তার হাত ধরেই অভিনয়ে আসা। প্রথম অভিনীত নাটক ৫১বর্তী। তারপর আর থেমে থাকিনি। অভিনয় করেই যাচ্ছি।'