বাফনের চ্যালেঞ্জ

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০১৪      

রফিকুল ইসলাম,ব্রাজিল থেকে

বিশ্বকাপ তো এমনই ইতালির! গ্রুপ পর্বে ধুঁকে ধুঁকে চলা। তার পর দুর্দান্ত। চারবারের চ্যাম্পিয়নরা কি আরেকবার কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে সেরা সাফল্য নিয়ে ফিরবে? হতে পারে। নাও হতে পারে। ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দুর্দান্ত সূচনা। পরের ম্যাচেই কোস্টারিকার কাছে হার। আজ্জুরিদের সামনে বরাবরের মতোই চ্যালেঞ্জ। সামনে উরুগুয়ে বলে প্রানদেলি্লর শিষ্যদের চ্যালেঞ্জটা বেশি কঠিন। লইস সুয়ারেজ নামের এক ফুটবল দানবকে সামলাতে হবে ইতালি দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড় গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি বাফনকে। দেশের হয়ে রেকর্ড ১৪১ ম্যাচ খেলা বাফনও জানেন, বড় চাপ নিয়েই মাঠে নামতে হবে তাকে। বেলো হরাইজন্তে থেকে ব্রাসিলিয়া যাওয়ার পথে যাত্রা বিরতিতে ইতালিয়ান সাংবাদিকের সঙ্গে পরিচয়। নাম গিয়ানলিকি। শেষ পর্যন্ত কী আছে ইতালির ভাগ্যে। এ প্রসঙ্গ উঠতেই নেপোলির ওই ক্রীড়া সাংবাদিক ভুরু কুঁচকিয়ে বললেন, 'এ বিশ্বকাপটা বাফনের জন্যই বড় চ্যালেঞ্জ। আর সে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় তাকে সামলাতে হবে সুয়ারেজের মতো ফরোয়ার্ডকে।'
স্থানীয় এক টিভি সাক্ষাৎকারে বাফনও চ্যালেঞ্জের কথা উল্লেখ করেছেন। 'আমার ভালো করেই জানা আছে, দেশের মানুষের প্রত্যাশাটা কী। এখন যে খারাপ অবস্থা, মানে একটা চাপে আছি সেখান থেকে দলকে আমাদেরই বের করতে হবে। অতীত টুর্নামেন্টগুলোর কথা সবার মনে আছে। চাপমুক্ত হয়ে কীভাবে এগোতে হয়, সেটা ভালো করেই জানেন ইতালির ফুটবলাররা। দেশের প্রতি ভালোবাসা আর জার্সির প্রতি সম্মানই আমাদের সাফল্যের প্রধান উপাদান।' বয়স ৩৬। রাশিয়া বিশ্বকাপের সময় বয়স হবে ৪০ বছর। তাই এটাই বাফনের শেষ বিশ্বকাপ। স্মরণীয় সাফল্য দিয়েই তিনি বিদায় জানাতে চাইবেন বিশ্বকাপকে।
গোল করে উরুগুয়ের চেয়ে এগিয়ে থাকায় একটু সুবিধা তো আছেই ইতালির। উরুগুয়ের সঙ্গে ড্র করলেই উঠে যাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে। এটা হিতে বিপরীতও হতে পারে। উরুগুয়ের সঙ্গে ড্র করাও তো কম কথা নয়। যেখানে ইতালি হেরে গেছে আন্ডারডগ কোস্টারিকার কাছে। 'বলতে পারেন এটা আমাদের ফাইনাল। কঠিন এক অবস্থায় আমাদের উরুগুয়ের বিপক্ষে নামতে হচ্ছে। তবে সম্ভাবনার যে তিনটি পথ আছে তার দুটিই আমাদের পক্ষে। ফুটবলে আমাদের যে শক্তি আর গর্ব আছে সেটাই খুঁজে বের করতে হবে এবং মাঠে তা প্রদর্শন করতে হবে। আমরা দারুণ একটা ব্যালেন্সড দল। দলের সদস্য সবাই দেশ ও জাতির প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ফুটবলে এমন অনেক কঠিন অবস্থা পার করেছি। উরুগুয়ের বিপক্ষে আবার সেটা প্রমাণ করতে চাই। আমরা অবশ্যই পরপর দুই আসরের গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিতে চাইব না'_ বলেন জিয়ানলুইজি বাফন।
উরুগুয়েকে শক্ত প্রতিপক্ষ হিসেবে উল্লেখ করে বাফন বলেছেন, 'কঠিন প্রতিপক্ষ। শেষ ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ফল তাদের দারুণ উজ্জীবিত করবে। আমরা নামব হারের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে। তাদের সঙ্গী অসাধারণ এক জয়ের। কোস্টারিকার বিপক্ষে আমরা ভালো খেলতে পারিনি। হেরেছি। এটা কোনো অজুহাত নয়। শুধু এতটুকুই বলব, আমরা ইংল্যান্ডের বিপক্ষে যা করতে পেরেছি, কোস্টারিকা সেটা পারেনি। আমরা অনেক সুযোগ তৈরি করেছিলাম। কিন্তু গোল পাইনি। ফুটবলে এটা হতেই পারে। আমরা পেশাদার ফুটবল। মাঠে সেটা প্রমাণ করতে হবে। গত কনফেডারেশন কাপে সেটা করেছি সেমিফাইনালে ওঠে।'