৩২ বছর পর এলো জয়

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০১৪

ক্রীড়া প্রতিবেদক

হাতে গর্বের জাতীয় পতাকা, মুখে ব্যানার। পোর্তো অ্যালেগ্রের গ্যালারিতে যেন একখণ্ড আলজেরিয়ান। নানা রঙে সেজেছিল এশিয়ার জায়ান্ট দক্ষিণ কোরিয়ার সমর্থকরাও। কিন্তু সাদা রঙে ধূসর হয়ে গেছে লাল। কোরিয়ানদের চোখের কোণে টলটল করতে থাকে জল। বিপরীতে আনন্দে-আত্মহারা আলজেরিয়ানরা। দেশটির রাজধানীর রাস্তায় নেমে উল্লাসে মেতে ওঠেন ফুটবলপ্রেমীরা। ৩২ বছর পর বিশ্বকাপে প্রথম জয়ের স্বাদ পেয়েছে আফ্রিকান দলটি। এশিয়ার ব্রাজিলখ্যাত দ. কোরিয়াকে ৪-২ গোলে বিধ্বস্ত করে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠার সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়েছে আলজেরিয়ার।
বেলজিয়ামের বিপক্ষে সুফিয়ান ফেগোলির গোল বিশ্বকাপে ২৮ বছর অপেক্ষার অবসান। সেই সাফল্যে বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস করেছিল আলজেরিয়ানরা। এবার তো বুনো উল্লাস করেছে তারা। ১৯৮২ সালে চিলিকে হারানোর পর এটাই বিশ্বকাপে আলজেরিয়ার প্রথম জয়। এই জয়ে দুই ম্যাচে ৩ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার দুই নম্বরে উঠে এসেছে আলজেরিয়া। দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে রাশিয়ার বিপক্ষে শেষ ম্যাচে আর ১ পয়েন্ট প্রয়োজন তাদের। সমান ম্যাচে কোরিয়ার পয়েন্ট ১।
ফুটবলের তীর্থভূমি ব্রাজিলে ইতিহাস গড়েছে 'দ্য ডেজার্ট ফক্স'। প্রথম আফ্রিকান দেশ হিসেবে বিশ্বকাপে চার গোল করার কীর্তি গড়েছে আলজেরিয়া। রোববার ব্রাজিলের ছবির মতো সুন্দর শহর পোর্তো অ্যালেগ্রেতে সুন্দর ফুটবল উপহার দিয়েছিল ভাহিদ হালিলহোজিসের শিষ্যরা। প্রথমার্ধে তিন গোলে এগিয়ে যাওয়ার পরই ম্যাচে প্রায় ৭০ শতাংশ ওখানেই জিতে যায় মরু শেয়ালরা। ম্যাচের ২৬, ২৮ এবং ৩৮ মিনিটে গোলগুলো করেন যথাক্রমে ইসলাম স্লিমানি, রাফিক হালিচে এবং আবদেল মুমেন জাব। শুরুর একাদশে পাঁচটি পরিবর্তন এনেছিলেন আলজেরিয়ান কোচ হালিরহোজিসের। ৪-৪-২ ফরমেশনে শুরু থেকেই কোরিয়ার রক্ষণভাগে প্রচণ্ড চাপ তৈরি করে আলজেরিয়া। প্রথম ২০ মিনিট এশিয়ার জায়ান্টদের চাপে রাখে মরু শেয়ালরা। ২৬ মিনিটে কোরিয়ার প্রতিরোধ ভেঙে দেয় আলজেরিয়া। দূরপাল্লার একটি ক্রস থেকে বল পেয়েছিলেন স্ট্রাইকার স্লিমানি। তার জোরালো শট ঠেকানোর কোনো সুযোগই ছিল না দক্ষিণ কোরিয়ার গোলরক্ষক জাং সুং রিয়ংয়ের। এরপর আলজেরিয়ার ডিফেন্ডারদের ম্যাজিক। লম্বায় কোরিয়ানদের চেয়ে বড় হওয়ার ফায়দাটা কর্ণারে তুলে নিয়েছে আলজেরিয়া। ২৮ মিনিট কর্ণার থেকে কোরিয়ার জাল খুঁজে নেন হালিচে। এগিয়ে এসে পাঞ্চ করার চেষ্টা করেছিলেন সুং রিয়ং; কিন্তু খাটো হওয়ায় তিনি বলে হাতই লাগাতে পারেননি। কোরিয়ার ডিফেন্ডারদের ব্যর্থতায় নয় মিনিট পর ব্যবধান বাড়ান মুমেন।
প্রথমাধর্ে্ব আলজেরিয়ার হলে দ্বিতীয়ার্ধ দক্ষিণ কোরিয়ার। গোল শোধে মরিয়া হয়ে মাঠে নামেন হং মং বোর শীষ্যরা। সাফল্য পেতেও দেরি হয়নি তাদের। ৫০ মিনিটে গোল করেন সন হেউং মিন। এরপর আক্রমনের ধারও বাড়িয়ে দেয় এশিয়ার দলটি। ৫২, ৫৬ ও ৫৮ মিনিটে তিনটি সুযোগও তৈরি করে তারা। কিন্তু স্ট্রাইকারদের ব্যর্থতায় সেগুলো কাজে লাগাতে পারেননি কোরিয়ানরা। উল্টো খেলার ধারার বিপরীতে ৬২ মিনিটে আবার ব্যবধান বাড়ায় আলজেরিয়া। ফেগোলির সঙ্গে ওয়ান-টু খেলে গোলটি করেন ইয়সিন ব্রাহিমি। ৭২ মিনিটে কোরিয়ার পক্ষে দ্বিতীয় গোল করেন কু জা সিউল। এরপর আর সাফল্য না পাওয়ায় বিশ্বকাপে আফ্রিকার কোনো দেশের কাছে হারতে হয়েছে কোরিয়াকে।