নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে গতকাল শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বামী ও বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ জামাতা পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে রাজধানী ঢাকা, রংপুর ও মরহুমের জন্মস্থান পীরগঞ্জে তার কবর ও প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, স্মরণসভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং রক্তদান কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। ধানমণ্ডির বাসভবন সুধা সদনে বাদ মাগরিব মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অংশ নেন।
সকালে রংপুরের পীরগঞ্জের লালদীঘির ফতেহপুরে ড. ওয়াজেদ মিয়ার কবরে পুষ্পমাল্য দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর পক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোতাহারুল হক বাবলু পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এ ছাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম জিয়াউল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন দল ও সংগঠনের নেতারা শ্রদ্ধা জানান। পরে কবর জিয়ারত, ফাতেহা পাঠ, মিলাদ মাহফিল, বিশেষ মোনাজাত ও দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।
বিকেলে দলীয় কার্যালয়ে মোতাহারুল হক বাবলুর সভাপতিত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়।
রাজধানীর ধানমণ্ডিতে মরহুমের বাসভবন সুধা সদনে দিনব্যাপী কোরআনখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। মাগরিবের নামাজের পর মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া মন্ত্রিবর্গ, সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ প্রয়াত ড. ওয়াজেদ মিয়ার পরিবারের সদস্য, আত্মীয়-স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষী ও প্রতিবেশীরা মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে অংশ নেন। মাহফিলে ড. ওয়াজেদ মিয়ার রুহের মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এ ছাড়াও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ১৫ আগস্টে শহীদদের বিদেহী আত্মার শান্তি এবং দেশ ও জাতির অব্যাহত শান্তি, উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনা করে মোনাজাত করা হয়।
বঙ্গবন্ধু এভিনিউর দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ মিলাদ ও দোয়া মাহফিল করেছে। শাহবাগের কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের সেমিনার কক্ষে স্মরণসভা করেছে ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন। স্বাধীনতা পরিষদ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করে। বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিল করেছে।

মন্তব্য করুন