উত্তর প্রদেশে কংগ্রেসের 'ব্রহ্মাস্ত্র' প্রিয়াঙ্কা

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৬      

সমকাল ডেস্ক

উত্তর প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের প্রচারপ্রধানের দায়িত্ব নিতে পারেন গান্ধী পরিবারের কনিষ্ঠ সদস্য প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। তবে এ নিয়ে দলের নেতাদের মধ্যে এখনও মতপার্থক্য রয়েছে। বলা হচ্ছে, শেষ সিদ্ধান্ত নেবেন সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। কংগ্রেসের এমন সিদ্ধান্তহীনতার সুযোগে আক্রমণ শানাতে দেরি করেনি ক্ষমতাসীন বিজেপি। তারা বলছে, কংগ্রেস আত্মবিশ্বাসের অভাবে ভুগছে।
প্রিয়াঙ্কাকে কংগ্রেসের শেষ ব্রহ্মাস্ত্র বলে বিবেচনা করছেন অনেক নেতা। তাই অনেক হিসাব-নিকাশ করে উত্তর প্রদেশের ভোটে তাকে কাজে লাগাতে চাইছে দলটি, যাতে সাপও মরে, লাঠিও না ভাঙে।
প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভদ্র। চেহারা-ছবি, চলনে-বলনে দাদি ইন্দিরা গান্ধীর ছায়া। তাঁতের শাড়ি পরার ধরনটিতেও যেন সেই একই রকম আভিজাত্য। রাজীবকন্যা মুখ খুললে দলের প্রবীণরা তার মধ্যে দেখতে পান ইন্দিরার দৃঢ়তা!
এদিকে, রণকৌশল ঠিক করার ভার পেয়ে প্রশান্ত কিশোরও তাই প্রস্তাব রেখেছিলেন রাহুল গান্ধী যদি রাজি না হন, উত্তর প্রদেশের ভোটের প্রচারে প্রধান করা হোক প্রিয়াঙ্কাকে। একের পর এক পরাজয়ের মুখেও এত দিন দলের শেষ দুটি বড় অস্ত্র রাজ্য রাজনীতির গণ্ডিতে নামিয়ে আনতে রাজি হয়নি দল। এমনকি খোদ সোনিয়া গান্ধীও।
অথচ উত্তর প্রদেশের ভোটে ভালো ফল করাও জরুরি, সেটা গান্ধী পরিবারের চেয়ে ভালো আর কে জানে! এ অবস্থায় দাদা রাহুলের সঙ্গে প্রিয়াঙ্কাকে প্রচারযুদ্ধে নামাতে মনস্থ করেছে দল। প্রচারে গোটা রাজ্যে রাহুলের সঙ্গী হতে পারেন প্রিয়াঙ্কা। দলের অন্দরে মোটামুটি এমনটা ঠিক হয়েছে। তবে প্রিয়াঙ্কা ভোটের ময়দানে নেমে যদি ধারে, ঝাঁজে ও উজ্জ্বলতায় ছাপিয়ে যান রাহুলকে! এ আশঙ্কায় রয়েছেন কংগ্রেসের অনেক নেতা। সে কারণে বিশেষ একটি কৌশল নেওয়া হচ্ছে। ভাবনাটি এ রকম, রাহুল বা প্রিয়াঙ্কা, কাউকেই মুখ্যমন্ত্রী পদে দাঁড় করানো হবে না। রাহুলের সেনাপতি হিসেবেই গোটা রাজ্যে প্রচার অভিযানে নামবেন প্রিয়াঙ্কা। এতে রাহুলকে ছাপিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকবে না। উত্তর প্রদেশে কংগ্রেসের ফল খারাপ হলে দায় চাপবে না প্রিয়াঙ্কার ঘাড়ে।
বিজেপির মুখপাত্র শুধাংশু ত্রিবেদী বলেন, 'কংগ্রেস এখনও বুঝতে পারছে না জোট গড়বে কি-না। যদি গড়ে, তাহলে কার সঙ্গে? রাজ্যসভা নির্বাচনে দলটি বহুজন সমাজবাদী পার্টি থেকে সহযোগিতা নিচ্ছে। কিন্তু বাস্তবে তাদের সঙ্গে জোট গড়া নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছে।'