ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং

প্রকাশ: ১৬ জুলাই ২০১৯      

ফারজানা আক্তার

সারাদেশের মানুষকে স্বাবলম্বী করতে কারিগরি ও প্রশিক্ষণের ওপর জোর দিচ্ছে সরকার, সবাইকে আত্মনির্ভরশীল করতে নানা কর্মমুখী উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত করার জন্য তরুণ ও মহিলা উভয়কেই প্রযুক্তিগত এবং বৃিত্তমূলক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ গ্রহণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারিগরি শিক্ষা দক্ষ মানবসম্পদ নির্মাণে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে এবং মজবুত ও টেকসই অর্থনীতির চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করতে পারে। বর্তমানে প্রতি বছর প্রায় দুই লাখ মানুষ কর্মক্ষেত্রে যোগ দিচ্ছে। এই বিশাল কর্মক্ষম জনসংখ্যা দেশের ভাগ্য পরিবর্তনে সক্রিয় ভূমিকা রাখতে পারে। দেশের উন্নয়ন ও উল্লেখযোগ্য বৈদেশিক রেমিট্যান্স অর্জনের জন্য দক্ষ ব্যক্তিদের ভূমিকাও খুবই গুরুত্বর্পূণ। তাই এসএসসির পরে একজন শিক্ষার্থী স্বনির্ভর পেশা গড়তে গ্রহণ করতে পারে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স। কারিগরি শিক্ষা গ্রহণের পর শিক্ষার্র্থীকে আর চাকরির জন্য অপেক্ষা করতে হয় না। সে নিজেই অর্জিত শিক্ষার সঙ্গে মিল রেখে পছন্দের পেশা গ্রহণ করতে পারে বা স্বাধীনভাবে স্ব-কর্মসংস্থান করতে পারে। বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি এবং কারিগরি শিক্ষার এই অপার সম্ভাবনার দিকে লক্ষ্য রেখে ড্যাফোডিল ইনস্টিটিউট অব আইটি, চট্টগ্রাম ২০০৬-০৭ সেশন থেকে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড অনুমোদিত চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স পরিচালনা করে আসছে। তাদের মধ্যে ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার, ইলেকট্রিক্যাল, মেকানিক্যাল, সিভিল এবং আর্কিটেকচার প্রোগ্রামগুলোর গ্রহণযোগ্যতা ইতিমধ্যে চাকরি ক্ষেত্রে আশাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। কারণ ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সগুলো তাত্ত্বিক, ব্যবহারিক ও কর্মক্ষেত্রে প্রয়োগের প্রশিক্ষণমূলক, যা উচ্চশিক্ষিত ও বাস্তব জ্ঞানে সুপ্রশিক্ষিত শিক্ষকমণ্ডলী ও দক্ষ ল্যাব প্রশিক্ষক দ্বারা পরিচালিত। তা ছাড়া ড্যাফোডিলের রয়েছে নিজস্ব ক্যাম্পাস ও ওয়াইফাই সুবিধা, সফল ছাত্রছাত্রীদের ড্যাফোডিল গ্রুপেই ইন্টার্নশিপ ও চাকরির সহযোগিতা, দরিদ্র ও মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের জন্য স্কলারশিপ, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পাসের পর ছাত্রছাত্রীদের ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে উচ্চশিক্ষা লাভ করার সুযোগ ইত্যাদি। বর্তমানে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং-কম্পিউটার, ইলেকট্রিক্যাল, মেকানিক্যাল, আর্কিটেকচার এবং সিভিল প্রোগ্রামে নূ্যনতম জিপিএ ২.০০ প্রাপ্ত ছাত্রছাত্রীরা ভর্তি হতে পারবে। এ ছাড়া এইচএসসি বিজ্ঞান বিভাগ থেকে উচ্চতর গণিতসহ নূ্যনতম জিপিএ ২.০০ প্রাপ্ত ছাত্রছাত্রী সরাসরি তৃতীয় সেমিস্টারে ভর্তি হতে পারবে।

যোগাযোগ-নিজস্ব ক্যাম্পাস : ৯৪, শেখ মুজিব রোড, চৌমুহনী, আগ্রাবাদ, চট্টগ্রাম। ফোন : ০১৭১৩-৪৯৩২০৫, ০১৭১৩-৪৯৩২৫৭।