বৈচিত্র্যময় পদ নিয়ে রোজাদারদের চাহিদামতো ইফতার সামগ্রীর পসরা সাজিয়েছে নগরীর হোটেল রেস্তোরাঁগুলো। কোথাও রয়েছে প্যাকেজের ব্যবস্থা, কোথাও আবার নতুন নতুন আইটেমে দেওয়া হচ্ছে ছাড়! নগরীর পাঁচ তারকা হোটেল র‌্যাডিসন ব্লু চিটাগাং বে ভিউ, তিন তারকা মানের হোটেল দি পেনিনসুলা, হোটেল আগ্রাবাদ হোটেলসহ তারকা মানের হোটেলের পাশাপাশি অন্য হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোও আকর্ষণীয় পদের রকমারি ইফতারি দিয়ে আয়োজন সাজিয়েছে। হোটেল ওয়েল পার্ক, অ্যাম্ব্রোসিয়া, রোদেলা বিকেল, রেড চিলি, হু চিটাগাং, সিলভার স্পুন, বোনানজা, তাবা, হ্যান্ডি, ক্যান্ডি, মেরিডয়ানসহ বিভিন্ন অভিজাত হোটেল রেস্তোরাঁয় রয়েছে বাহারি আয়োজন।
মাঝারি মানের হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোতে রয়েছে মুখরোচক নানা পদের খাবার। প্রথম রোজার দিন থেকেই ইফতারি কেনার ধুম পড়ে। পুরো নগরজুড়ে প্রতিটি হোটেল-রেস্তোরাঁয় ক্রেতাদের ভিড় ছিল। প্রথম রোজায় আকর্ষণীয় ইফতার সামগ্রী কিনতে রোদেলা বিকেলে আসেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। মুখরোচক ইফতারির পসরা র‌্যাডিসন ব্লুতে। এখানে ইফতার আয়োজনে রয়েছে ছোলা-মুড়ি থেকে শুরু করে বিদেশি নানা খাবারের সমারোহ। রয়েছে দেশি-বিদেশি নানা স্বাদের মিষ্টি ও ফল। ১ থেকে ১৫ রমজান পর্যন্ত ১০ ভাগ কম খরচে ইফতার পার্টি করার সুযোগ রয়েছে। ইফতার পার্টিতে সাড়ে তিনশ'র বেশি মানুষ হলে থাকছে বিশেষ ছাড়! রয়েছে রমজানের বিজনেস ট্রিপ প্যাকেজও। এ প্যাকেজে রয়েছে র‌্যাডিসন ব্লুর সুপিরিয়র রুমে একরাত থাকা, ২ ঘণ্টার ব্যবসায়িক মিটিং, ইফতার, বুফে ডিনার, সেহরি করার সুযোগ। আর এতসব আয়োজন উপভোগ করতে হলে খরচ করতে হবে ১২ হাজার টাকা। র‌্যাডিসন ব্লুু চিটাগাং বে ভিউর সহকারী ম্যানেজার (পিআর) তাখরিন খান জানান, আনন্দের সঙ্গে ইফতারি উপভোগ করার জন্য যা যা করার দরকার তার সবটুকুর ব্যবস্থা করা হয়েছে। রোজাদারদের সুবিধার্থে দেশি স্বাদের নানা খাবারের পাশাপাশি রাখা হয়েছে বিদেশি খাবারও। চট্টগ্রামবাসীর পছন্দের কথা মাথায় রেখে এবারের ইফতারের আয়োজন করা হয়েছে।
পেনিনসুলায় ঘরোয়া পরিবেশে রয়েছে উন্নত ইফতার সামগ্রী। ইফতার উপলক্ষে প্রায় শতাধিক পদ নিয়ে রোজাদারদের সামনে হাজির হয়েছে নগরীর এই অভিজাত হোটেল। হোটেলের চতুর্থ তলার ক্যাফে ২৪-এ আছে ইফতার সামগ্রী কিনে বাসায় নিয়ে যাওয়ার সুযোগ। একই তলার জিইসি ওয়েস্ট রেস্তোরাঁয় আছে পছন্দমতো মেনুতে ইফতারি নেওয়ার সুযোগ। ষষ্ঠ তলার লেগুনা রেস্তোরাঁয় বসে ইফতারের সঙ্গে রাত ১১টা পর্যন্ত গ্রহণ করা যাবে বাফেট ডিনারও। চতুর্থ তলার ক্যাফে ২৪ থেকে ইফতারির বিভিন্ন পদ আলাদা আলাদাভাবে কেনার সুযোগ আছে। পাশাপাশি দুই মেনুতে বক্সে করে ইফতার সামগ্রী কিনে নিতে পারবেন ক্রেতারা। ছোলা-পেঁয়াজুসহ শ্রীলংকান চিকেন রোল, সিসে পাফের মতো পদ দিয়ে একজন রোজাদার মাত্র ২৯৯ টাকা দিয়ে মোট ১২টি পদের ইফতার সামগ্রী পেতে পারবেন। একই তলার জিইসি ওয়েস্ট রেস্তোরাঁয় দেশি, উপমহাদেশীয় এবং অ্যারাবিক খাবারের পৃথক তিন মেনুতে ইফতার গ্রহণ করতে পারবেন রোজাদাররা। এর মধ্যে দেশি মেনুতে রয়েছে ১৭টার মতো পদ। অন্যদিকে মহাদেশীয় মেনুতেও একই দামে ১২টা পদের ইফতার গ্রহণ করতে পারবেন ক্রেতারা। অন্যদিকে হোটেলের ষষ্ঠ তলার লেগুনা রেস্তোরাঁয় ইফতারের পাশাপাশি বাফেট ডিনারেরও সুযোগ রয়েছে। বাফেট ডিনার ও বাফেট ইফতারে সুযোগ রয়েছে ১৩টি

দেশের খাবার গ্রহণের সুযোগ। রাত ১১টা পর্যন্ত খাবার গ্রহণ করা যাবে তাতে। এতে জনপ্রতি খরচ পড়বে ২ হাজার ৩৭১ টাকা। আকর্ষণীয় পদ দিয়ে ইফতার ও ডিনারের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান হোটেলের ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, 'প্রায় শতাধিক ইফতারের পদ নিয়ে এবারের আয়োজন। কম টাকায় যাতে রোজাদাররা তৃপ্তি করে ইফতার করতে পারে তার সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।'
ভোজনরসিকদের প্রিয় ঠিকানা রোদেলা বিকেলে আকর্ষণীয় ও মজাদার আইটেম দিয়ে সাজানো হয়েছে এবারের ইফতারের আয়োজন; যা তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে নিজস্ব ঐতিহ্য অনুযায়ী বিশ্বের সেরা ব্রান্ডের অয়েল, দুধ, জাফরান, কিশমিশ, চিনি, ময়দা, ডালডা, মসলা আর দেশের নানা অঞ্চল থেকে আনা সেরা উপকরণ। এখানে রাখা হয়েছে চিকেন রোল, মেজবানের মাংস, চিকেট ললিপপ, দই বড়া, চিকেন তান্দুরি, প্রন তান্দুরি, স্পেশাল লাচ্ছি, বিফ বটি কাবাবসহ আরও অনেক কিছু। ১০ ও ১২টি আকর্ষণীয় আইটেম দিয়ে রাখা হয়েছে দুটি আকর্ষণীয় প্যাকেজও। যার জন্য গুনতে হবে একটিতে ৩৫০ টাকা ও অপরটিতে ৫৫০ টাকা। এখানে আয়োজন করা যাবে ইফতার পার্টি। থাকছে ইফতারে স্পেশাল গিফট প্যাকেট। রাত ১২টা পর্যন্ত বিক্রি হবে স্পেশাল দুধ চা, সুইট লাচ্ছি, লাচ্ছা পরোটা ও কুলফি আইসক্রিম। এ ছাড়াও জিইসি মোড়ের বোনানজা রেস্টুরেন্ট, হান্ডি ইন্ডিয়ান ব্রিস্টো, অ্যামব্রোশিয়াসহ তারকা মানের হোটেল-রেস্তোরাঁয় এবার আয়োজন করা হয়েছে বৈচিত্র্যময় ইফতার-ডিনারের।

মন্তব্য করুন