বনসম্পদ সংরক্ষণে বন বিভাগের অপারগতা, সত্যিকারের জনঅংশগ্রহণে বিচ্যুতি, ব্যাপক হারে বন উজাড় ও প্রাণী হত্যার কারণে পরিবেশ বিপন্ন অবস্থায় রয়েছে, আর এ কারণে প্রচণ্ড গরমে বৈরী প্রাকৃতিক আবাহওয়ায় জনজীবন বিপন্ন। বর্ষাকালে বৃষ্টি নেই, শীতকালে শীত নেই, ঘনঘন ঘূর্ণিঝড়, সাইক্লোনসহ নানা প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কবলে পুরো দেশ।
৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপন উপলক্ষে চকরিয়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা এমন মত প্রকাশ করেন। চকরিয়া উপজেলা প্রশাসন, গণসাক্ষরতা অভিযান, আইএসডিই বাংলাদেশ ও চকরিয়াতে কর্মরত বেশ কয়েকটি সংগঠনের উদ্যোগে পরিবেশ দিবস উদযাপন উপলক্ষে শোভাযাত্রা, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম খান, সহকারী বন সংরক্ষক মুহাম্মদ ইউসুফ, আইএসডিই বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক এসএম নাজের হোসাইন, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সিপিপির টিম লিডার নুরুল আবচার, ডুলাহাজারা কলেজের অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দীন চোধুরী, সাহারবিল ইউপি চেয়ারম্যান মহসিন বাবুল, উপজেলা নারী উদ্যোক্তা পরিষদের সভানেত্রী উম্মে কুলসুম মিনু, মেধাকচ্ছপিয়া সিএমসি কমিটির সভাপতি এসএম আবুল হাসেন, এসএআরপিভির সমন্বয়কারী কাজী মাকসুদুল আলম, আবদুল কাইয়ুম, সাংবাদিক জাহেদুল আলম প্রমুখ।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাহেদুল ইসলাম বলেন, 'ঘন ঘন প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণে চকরিয়া উপজেলার জীববৈচিত্র্য মারাত্মক হুমকির সম্মুুখীন। ভয়াবহ ঘূর্ণর্িঝড়ে আক্রান্ত চকরিয়ার মানুষের জীবন-জীবিকাও সংকটাপন্ন হয়ে যাচ্ছে।
নির্বিচারে বন ও বণ্য প্রাণী ধ্বংসের কারণে পরিবেশের এই সংকট। আর এ সংকট মোকাবেলায় সরকারের উদ্যোগের পাশাপাশি বেসরকারি উন্নয়ন সংগঠন ও স্থানীয় জনগণের বন ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে একযোগে কাজ করতে হবে।'
এসএম নাজের হোসাইন বলেন, চকরিয়ার উপকূল তথা কক্সবাজারে জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশ বর্তমানে মারাত্মক হুমকির মুখে। দেশের অন্যতম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট চকরিয়া সুন্দরবন হারিয়ে গেছে। বর্তমান প্রজন্ম চকরিয়া সুন্দরবনের কথা বইতে পড়লেও বাস্তবে দেখার সুযোগ নেই। কারণ সেখানে এখন চিংড়ির ঘের ও খামার। তিনি চকরিয়া সুন্দরবন ধ্বংসের সাথে জড়িতদের বিচারের আওতায় দাঁড় করানোর আহ্বান জানান।
সহকারী বন সংরক্ষক মুহাম্মদ ইউসুফ বলেন, 'বন ধ্বংস হয়ে জীববৈচিত্র্য আজ চরম হুমকির মুখে। পরিবেশ বাঁচলে আমরা বাঁচব। চকরিয়া সুন্দরবন আজ হারিয়ে গেছে। মাতামুহুরী নদী আজ বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। মাতামুহুরী বাঁচলে চকরিয়া বাঁচবে।'
চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় প্রাথমিক বিদ্যালয় গ্রুপে প্রথম হয়েছে নওশিন বিন সাহেদ, ২য় রেকেয়া মাহিন ও তৃতীয় সামিয়া হক শিরিন। মাধ্যমিক গ্রুপে প্রথম তামান্না ইসলাম, দ্বিতীয় মুহাম্মদ ইশান ইমতিয়াজ, তৃতীয় তাসফিয়া নুর কাশপিয়া।

মন্তব্য করুন