প্রতারণার দায়ে এমতাজুলের বিরুদ্ধে ৯১ মামলা

প্রকাশ: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

মিরসরাই প্রতিনিধি

প্রতারণাসহ নানা অভিযোগে আবাসন প্রতিষ্ঠান ইন্টারনালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) একেএম এমতাজুল ইসলাম রূপকের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন স্থানে ৯১টি মামলা হয়েছে।

তার প্রতারণার ফাঁদে পড়ে সর্বস্ব হারিয়েছেন অসংখ্য মানুষ। সর্বশেষ মামলার বাদী মিরসরাইয়ের কাঠ ব্যবসায়ী হাজী মো. জামাল উদ্দিন। তিনি গত ১৭ ডিসেম্বর এমতাজুল ইসলাম, আব্দুল আউয়াল ইমন ও আবুল কাশেম নামে ৩ জনকে আসামি করে জোরারগঞ্জ থানায় একটি প্রতারণার মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় গ্রেফতার হয়ে বর্তমানে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন এমতাজুল। এমতাজুল ইসলাম চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার কালিপুর গ্রামের মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে।

মামলার বাদী জানান, আবাসন প্রতিষ্ঠান ইন্টারনালের এমডি কে এম এমতাজুল ইসলাম প্রকাশ রূপক পরিচয় সূত্রে আমাকে দক্ষিণ চট্টগ্রাম বনবিভাগ মৌজা কালিপুরের বাগান থেকে কাঠ কেনার প্রস্তাব করেন। আমি তার প্রস্তাবে রাজি হই। পরে কাঠ কেনার জন্য এমতাজুলের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে এবং তার কথামতো মামলার ২নং আসামি আব্দুল আউয়াল ইমন ও ৩ নং আসামি আবুল কাশেমকে নগদ তিন কিস্তিতে ৩০ লাখ ৫ হাজার টাকা দিয়েছি। টাকা পাওয়ার পর ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর তিনি আমাকে ৬ লাখ টাকা মূল্যের কাঠ দিয়ে লাপাত্তা হয়ে যান। এরপর আর কোনো কাঠ দেননি।

তিনি আরো বলেন, 'বাগানের সব কাঠ তিনি অন্যজনের কাছে বিক্রি করে দেন। আমি টাকা চাইলে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেন এবং হত্যার হুমকি দেয়। ব্যবসার সব টাকা হারিয়ে এখন আমি অনেকটা নিঃস্ব।' জানা গেছে, শুধু জামাল উদ্দিন নয়, এভাবে প্রতিদিন ইন্টারনাল থেকে ফ্ল্যাট কেনা এবং সাপ্লাইয়ের ব্যবসা করা অসংখ্য মানুষ তাজুলের প্রতারণার শিকার হয়েছেন।

গত ৩১ জানুয়ারি প্রতারণা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি এমতাজুল ইসলামকে আরও একটি সাজাপ্রাপ্ত মামলায় গ্রেফতার দেখানোর নির্দেশ দিয়েছেন চট্টগ্রামের ৩য় যুগ্ম দায়রা জজ আদালতের বিচারক বিলকিস আকতার।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জোরারগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক সুজয় কুমার মজুমদার জানান, কাঠ ব্যবসায়ী জামাল উদ্দিনের দায়ের করা প্রতারণার মামলায় বিজ্ঞ আদালত আসামি তাজুল ইসলামকে গ্রেফতার দেখানোর নির্দেশ দেয়। ওই মামলায় আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে একদিনের রিমান্ড আবেদন করেছিলাম। বিজ্ঞ আদালত তাকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছেন।