একটি অবৈধ স্থাপনাও থাকবে না কর্ণফুলীতে : ইলিয়াস হোসেন, জেলা প্রশাসক

প্রকাশ: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াছ হোসেন বলেছেন, 'আরএস ও বিএস খতিয়ান ধরে জরিপে কর্ণফুলীর তীরে মোট ১৫৮ দশমিক ৪৫ একর ভূমিতে অবৈধ স্থাপনা তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। স্থানীয়ভাবে এই ১৫৮ একর ভূমির মূল্য দুই হাজার ৩৭০ কোটি টাকা। সরকারি, বেসরকারি ও ব্যক্তি মালিকানাধীন বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি হয়েছে কর্ণফুলীর তীর দখল করে। তবে নদীর তীর দখল করে প্রতিষ্ঠিত নৌবাহিনী ও বন্দর কর্তৃপক্ষের জেটিসহ ছয়টি স্থাপনা অপসারণের আওতামুক্ত থাকবে বলে রায় দিয়েছেন আদালত।'

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, 'চারটি সংস্থার সাথে সমন্বয় করে একযোগে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। এ জন্য প্রাথমিকভাবে প্রয়োজনীয় এক কোটি ২০ লাখ টাকা সংস্থান করার আশ্বাস দিয়েছেন ভূমিমন্ত্রী। এ ব্যাপারে আদালতেরও সুস্পষ্ট নির্দেশনাও রয়েছে। নদীর তীরকে কয়েকটি জোনে ভাগ করে উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেছি আমরা।'

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, 'আরএস খতিয়ান অনুযায়ী কর্ণফুলী শিপ বিল্ডর্াসের মূল ভবনের কিছু অংশ অবৈধ, তা আমরা ভেঙে দিয়েছি। যত হুমকি দেওয়া হোক অভিযান বন্ধ হবে না।'