আনন্দ আড্ডায় চবি গণিত সুবর্ণজয়ন্তী মিলনমেলা

প্রকাশ: ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

আনন্দ আড্ডায় চবি গণিত সুবর্ণজয়ন্তী মিলনমেলা

চবি গণিত সুবর্ণজয়ন্তীর মিলনমেলায় সম্মাননাপ্রাপ্ত অতিথিরা- সমকাল

১৯৬৮ থেকে ২০১৮ সাল। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) গণিত বিভাগের বয়স সদ্য পেরিয়েছে ৫০ বছর। এই অর্ধশত বর্ষে হাজার হাজার শিক্ষার্থী লেখাপড়ার পাঠ চুকিয়ে ছড়িয়ে পড়েছেন নানা কর্মক্ষেত্রে। সম্প্রতি 'এসো বন্ধনের মোহনায়, গণিতের মিলনমেলায়' স্লোগানে সুবর্ণজয়ন্তীর মিলনমেলায় প্রাণের উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠেন প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। স্মৃতিকথন, আনন্দ আড্ডা, বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, সঙ্গীত, নৃত্য, আবৃত্তি ও শিক্ষক সংবর্ধনা ও র‌্যাফেল ড্র'র মধ্য দিয়ে শেষ হলো চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের সুবর্ণজয়ন্তী মিলনমেলা।

চবি ক্যাম্পাস ও নগরীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে দু'দিনব্যাপী আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে গণিতের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা পেয়েছেন আনন্দযজ্ঞের বিশাল ফ্ল্যাটফর্ম।

গত ২৬ জানুয়ারি সমাপনী অনুষ্ঠানের প্রথম অধিবেশন শুরু হয় প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের ট্রেনযোগে প্রিয় ক্যাম্পাসে যাত্রার মধ্য দিয়ে। সকালে চট্টগ্রাম রেলস্টেশন থেকে বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে ডেমু ট্রেনে করে স্মৃতিময় ক্যাম্পেসে যাত্রা করেন তারা। ক্যাম্পাসে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, ক্যাম্পাস পরিদর্শন, ফটো সেশন, গান আড্ডায় স্মৃতির ডানায় উড়ে বেড়ান তারা।

এদিকে সন্ধ্যা ৬টায় চবি গণিত অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে উৎসবের সমাপনী দিনে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার। সুবর্ণজয়ন্তী মিলনমেলার আহ্বায়ক রাশেদ রউফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে গণিত বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষকদের সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। এতে সূচনা বক্তব্য দেন অধ্যাপক ড. উজ্জ্বল কুমার দেব এবং আলোচক ছিলেন অ্যাডভোকেট এএসএম শাহনূর, মনিলাল দাশ, আনোয়ার হোসেন, হাসান মাহমুদ, সামশুল হক দুলাল, অধ্যাপক মোহাম্মদ আব্দুল আলিম, অধ্যাপক রণজিৎ কুমার দত্ত, অধ্যাপক মোহাম্মদ হাসানুল ইসলাম, অধ্যাপক নাসিমা আক্তার লাকী, মোহাম্মদ সাজ্জাদুল হক, মোহাম্মদ খাইরুল ইসলাম ও সদস্য সচিব মোহাম্মদ মাজহারুল হক।

এরপর স্মৃতিচারণ দ্বিতীয় পর্বে সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক মোহাম্মদ আমিরুল মোস্তফা। সূচনা বক্তব্য দেন মিলনমেলার যুগ্ম আহ্বায়ক পরিমল কান্তি ধর। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন অধ্যাপক ড. সুনীল ধর, অধ্যাপক মোহাম্মদ কামাল হোসেন, অধ্যাপক সুপ্রতিম বড়ূয়া, ফজলুর রহমান, শ্রীবাস দাশ এবং গণিত বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। ধন্যবাদ বক্তব্য দেন সৈয়দ হাফিজুর রহমান।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বাচিকশিল্পী আয়েশা হক শিমু, অধ্যাপক শিপন চন্দ্র দেবনাথ ও ঊর্মিলা চৌধুরী।

সংবর্ধিত ব্যক্তিরা হলেন- চবি গণিত বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষক অধ্যাপক ড. মতিউর রহমান, অধ্যাপক ড. মুন্সী নজরুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. মুসলেহ উদ্দিন আহমেদ, অধ্যাপক ড. মো. মহিউদ্দিন, অধ্যাপক ড. মিলন কান্তিধর, অধ্যাপক ড. শাহাব উদ্দিন, অধ্যাপক ড. কামরুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. মো. জাহেদ, অধ্যাপক ড. পরিতোষ রায়, অধ্যাপক ড. মতিউর রহমান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের শিক্ষকরা অনেক বিখ্যাত। দেশ-বিদেশে তাদের অনেক সুনাম রয়েছে। বর্তমান যুগে গণিত ছাড়া, বিজ্ঞান ছাড়া কোনো উন্নতি নেই। তিনি আরও বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি সববৃহৎ হাইটেক পার্ক গড়ে তোলা হবে। ইতিমধ্যে জায়গা পরিদর্শন করেছেন মন্ত্রী। এটি গড়ে তোলা হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজের পরিধি আরও বেড়ে যাবে এবং অনেক লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

সবশেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন শিল্পী ইকবাল হায়দার, আলাউদ্দিন তাহের, নাদিরা পারভীন।