প্রচারণায় এম এ মতিন

মেগাসিটির কথা বলে যারা প্রতারণা করেছে তাদের 'না' বলুন

প্রকাশ: ১৭ জানুয়ারি ২০২১

সমকাল প্রতিবেদক

প্রধান দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীর পর ছোট দলগুলোর মধ্যে বড় সমর্থন আছে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের প্রার্থীর। কারণ চট্টগ্রামে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত সমর্থিত সুন্নী জনগোষ্ঠী হিসাবে পরিচিত বিশাল 'ভোট ব্যাংক' রয়েছে ইসলামী ফ্রন্টের।

ফ্রন্ট মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী মাওলানা এমএ মতিন দিনরাত ব্যস্ত প্রচারণায়। নগরীর নতুন ব্রিজ, চাক্তাই, মিয়াখান নগর পুল, ইছহাকের পুল, তুলাতুলি, রাজাখালীসহ বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগকালে মেয়র প্রার্থী এমএ মতিন বলেন, 'বিগত সময়ে মেগাসিটির সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে জনগণকে ধোঁকা এবং ভোট কারচুপি করে সিটির দায়িত্ব নিয়ে নগরবাসীর সঙ্গে প্রতারণা করেছে ক্ষমতাসীনরা। তাই তারা জনগণের কাছে দায়বদ্ধ ছিল না। এখনও হালকা বর্ষা বা জোয়ারের পানিতে তলিয়ে যায় বাকলিয়াসহ নগরীর অধিকাংশ জনপদ। অধিকাংশ সুবিধা থেকে বঞ্চিত বাকলিয়ার জনগণ।'

মতিন আরও বলেন, 'এখনও পশ্চিম বাকলিয়ার খালগুলো জবরদখল করে রেখেছে চিহ্নিত সুবিধাভোগী শ্রেণি, বন্যার পানি নিস্কাশনের একমাত্র মাধ্যম ৩০ ফুট প্রশস্ত তুলাতলি খালের ২০ ফুট দখল করে রেখেছে চিহ্নিত দখলবাজরা। পূর্ব বাকলিয়া ওয়ার্ড ভূমিদস্যু, মাদকসেবী ও চাঁদাবাজদের অভয়ারণ্য। পর্যাপ্ত পৌরসেবা না পৌঁছানোর কারণে এখনও এ ওয়ার্ডকে শহুরে গ্রাম বলে বিদ্রূপ করা হয়। দক্ষিণ বাকলিয়া ওয়ার্ডে খাল দখল করে ইমারত নির্মাণ ও যত্রতত্র আবর্জনার স্তূপে অতিষ্ঠ জনসাধারণ।'

এম এ মতিন বলেন, 'আমি নির্বাচিত হলে সর্বপ্রথম চাক্তাই ও তুলাতলি খাল সম্পূর্ণ দখলমুক্ত করে উন্নতমানের পানি নিস্কাশন পদ্ধতির মাধ্যমে জলাবদ্ধতার অভিশাপ থেকে বাকলিয়াকে মুক্ত করব। সড়ক সংস্কার, সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, খেলার মাঠের ব্যবস্থা, ছিন্নমূল শিশুদের জন্য নৈশ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাসহ পরিকল্পিত কার্যক্রমের মাধ্যমে বাকলিয়াকে নতুন করে সাজাব।' তিনি বলেন, 'পূর্বের মতো এবারও ভোটকেন্দ্র দখল করার চেষ্টা করলে ভোটাররা প্রতিরোধ গড়বেন, মেগাসিটির সাইনবোর্ড দিয়ে যারা প্রতারণা করেছে, তাদের না বলবেন। এবারের নির্বাচনে অপদৌরাত্ম্যের অবসান ঘটাতে হবে।'