সমকাল: কর্মজীবনের দক্ষতা বাড়াতে কীভাবে সাহায্য করে ইডিইউ?

সাঈদ আল নোমান : কর্মজীবনের পথ সফল করতে ইডিইউ দিয়ে থাকে ক্যাম্পাসে চাকরির সুবিধা। 'অর্জনই শিক্ষা'- এই প্রতিপাদ্য ধারণ করে পড়ালেখার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের জন্য ক্যাম্পাসে চাকরির সুযোগও দিয়েছি আমরা। শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষার মাঝে অবসরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সেকশনে চাকরি করছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভালো ফল অর্জনকারী শিক্ষার্থীদের জন্য এই সুযোগ রয়েছে। এ ছাড়া ইডিইউর রয়েছে নিজস্ব পত্রিকা বা নিউজলেটার। 'দ্য ইডিইউভিয়ান' নামের নিউজ লেটারে সংবাদগুলোর পাশাপাশি ফ্যাকাল্টি মেম্বার, কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীরা নিজেদের মৌলিক রচনা প্রকাশ করেন।'

সমকাল :মাস্টার অব পাবলিক পলিসি অ্যান্ড লিডারশিপ কোর্সটি সম্পর্কে আপনার মতামত কী ?

সাঈদ আল নোমান: সারাদেশে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে এই কোর্সটি শুধু আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়েই চালু আছে। আমরা কর্মীদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য এই কোর্স চালু করেছি। চাকরিজীবীদের জন্য এই কোর্সটি আশীর্বাদ। এই কোর্সে গবেষণার অনেক সুযোগ রয়েছে। এক বছরের মধ্যে মাত্র দুই সেমিস্টারেই এ কোর্স শেষ করতে পারেন শিক্ষার্থীরা। সারাদেশ থেকে এই কোর্সে শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ আছে। বিদেশি শিক্ষার্থীরাও এই কোর্সটি করতে আগ্রহী। বিশেষ বৃত্তিতে এই কোর্সে ৭০ থেকে শতভাগ বৃত্তির সুবিধাও আছে। চাকরিজীবীদের এই কোর্সটি করতে আমি সুপারিশ করি।

সমকাল: আন্তর্জাতিক শিক্ষার মান নিশ্চিত করছেন কীভাবে ?

সাঈদ আল নোমান : ইউনিভার্সিটি মালয়েশিয়া পার্লিসের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছি আমরা। অনেক বিদেশি শিক্ষক আছেন আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে। ক্লাসরুমগুলোও গড়ে তোলা হয়েছে আন্তর্জাতিক মান অনুসারে; ফলে একটি ক্লাসে সর্বোচ্চ ৩৫ জন শিক্ষার্থী অংশ নিতে পারেন।

আমাদের লাইব্রেরিতে আছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বইয়ের কর্নার। আমরা আমাদের শিক্ষার্থীদের আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিই। ডিগ্রির পাশাপাশি আমরা শিক্ষার্থীদের গ্লোবাল প্রডাক্ট হিসেবে গড়ে তুলছি।

মন্তব্য করুন