ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নীতিমালা হচ্ছে

প্রকাশ: ০৭ আগস্ট ২০১৭      

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নীতিমালা প্রণয়ন এখন জরুরি হয়ে উঠছে। এই বিধিমালা এমন হওয়া উচিত, যেন তা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অন্তরায় না হয়। গত শনিবার রাজধানীর বিসিএস ইনোভেশন সেন্টারে আয়োজিত 'ইলেকট্রিক্যাল এবং ইলেকট্রনিক পণ্য থেকে সৃষ্ট বর্জ্য (ই-বর্জ্য) ব্যবস্থাপনা বিধিমালা ২০১৭' প্রসঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার। তবে বিষয়টি নিয়ে যেন অব্যবস্থাপনা না হয়, সেই উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়কে আমাদের দাবিগুলো স্পষ্ট করব। এর পরে সংশ্লিষ্ট খাতসমূহের স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে আলোচনা করে কোনো বিধিমালা করতে হবে। ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক, মহাসচিব ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার, বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার, অ্যাসোসিওর সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ্ এইচ কাফি, বাংলাদেশ ইলেকট্রনিক মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব গৌরাঙ্গ দে, স্মার্ট টেকনোলজিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম, সিটিও ফোরামের সভাপতি তপন কান্তি সরকার, ওয়ালটন গ্রুপের এজিএম এস. এম. মিজানুর রহমান, এডিসন গ্রুপের মার্কেটিং ম্যানেজার এস. এম. শাহরিয়ার হুদাসহ ইলেকট্রনিক্স এবং ইলেকট্রিক্যাল ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ। এ সময় আলী আশফাক বলেন, পরিবেশ অধিদপ্তর যে বিধিমালার খসড়া তৈরি করেছে, তাতে এককভাবে কম্পিউটার, তথ্যপ্রযুক্তি, ইলেকট্রনিক্স এবং ইলেকট্রিক্যাল ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। আবদুল্লাহ্ এইচ কাফি বলেন, এমন কোনো বিধিমালা প্রণীত হওয়া উচিত নয়, যেখানে এক পক্ষ এককভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। গৌরাঙ্গ দে বলেন, গ্রাহকদের কাছ থেকে ভ্যাট আদায় করাই কঠিন চ্যালেঞ্জ। আবার ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য আরও ৫ শতাংশ আদায় করতে হলে, ইলেকট্রনিক্স ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম বলেন, পরিবেশ সংরক্ষণে এককভাবে কম্পিউটার ব্যবসায়ীদের ওপর এই নীতি চাপিয়ে দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। সভায় নতুন বিধিমালা খসড়া পর্যালোচনার জন্য তিন মাসের সময় চাওয়া হয়। আইসিটি মন্ত্রণালয়কে অতিরিক্ত আরও তিন মাস সময় বাড়ানোর জন্য প্রস্তাব পেশ করা হয়। এ ব্যাপারে এফবিসিসিআইর পক্ষ থেকে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় এবং আইসিটি বিভাগকে চিঠি দেওয়া হবে বলে এফবিসিসিআই পরিচালক শাফকাত হায়দার উল্লেখ করেন।
হপ্রযুক্তি প্রতিদিন প্রতিবেদক