ক্রিপ্টোকারেন্সি আনছে ফেসবুক

প্রকাশ: ০৯ জুন ২০১৯      

চলতি মাসেই ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে হাজির হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক। টেকক্রাঞ্চের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি মাসের ১৮ তারিখে চালু হতে পারে ভার্চুয়াল মুদ্রা 'ক্রিপ্টোকারেন্সি'। এর মাধ্যমে যে কোনো দেশ থেকেই লেনদেন করা যাবে। পুরো উন্নয়নের কাজ করছে ফেসবুকের 'প্রজেক্ট লিব্রা'। সিএনবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায় এক বছর আগে ফেসবুক অনলাইন লেনদেন সেবাদাতা পেইপ্যালের কর্মকর্তা ডেভিড মারকাসকে নিয়োগ দেয়। যার অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারে ব্লকচেইন প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা। ভার্চুয়াল এই মুদ্রা ব্যবহারকারীরা যেন কিনতে পারেন সে জন্য ফেসবুক এটিএম মেশিন আনতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে। ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্চেন্টদের বোনাস দেওয়ার মতো কাজ করবে। এ ছাড়াও এর সঙ্গে জড়িত কর্মীরা চাইলে তাদের বেতনও ক্রিপ্টোকারেন্সি বা এই ভার্চুয়াল মুদ্রায় নিতে পারবেন। প্রতিবেদনে আর জানিয়েছে, এই ভার্চুয়াল মুদ্রা ফেসবুকের সিকিউরিটি ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী করবে। বিটকয়েনের মতো এই মুদ্রা অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গেও লেনদেন সুবিধা বাড়াতে সহায়তা করবে। প্রথাগত মুদ্রায় ফেসবুকের পার্টনারদের বার্ষিক অন্তত এক কোটি ডলার তৃতীয় কোনো পক্ষের হাতে দিতে হয়। কিন্তু এটি চালু হলে ফেসবুক পার্টনাররা সেই অর্থ সাশ্রয় করতে পারবে বলে জানায় ফেসবুক। এর আগে এক সাক্ষাৎকারে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ জানিয়েছিলেন, এমনও হতে পারে, ব্লকচেইন প্রযুক্তি দিয়ে ফেসবুকে লগইন করতে হবে। যদি তার কথা সত্যি হয় তবে ফেসবুক ব্যবহারে অর্থ গুনতে হবে। মার্চের হিসাবে ফেসবুকের সক্রিয় ব্যবহারকারী ২৩৮ কোটি। যাদের জন্যই ফেসবুক এই ক্রিপ্টোকারেন্সি আনছে। প্রতিষ্ঠানটির আনা ক্রিপ্টোকারেন্সি বা ডিজিটাল মুদ্রার নাম লিব্রা রাখা হতে পারেও ধারণা করা হচ্ছে। কারণ, কিছুদিন আগেই জেনেভায় লিব্রা নেটওয়ার্কস নামে একটি প্রতিষ্ঠান খুলেছে ফেসবুক। গেল মে মাসেই ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নর মার্ক কার্নেইয়ের সঙ্গে বৈঠক করেছেন জাকারবার্গ। গ্রাহকদের কম খরচে অর্থ আদান-প্রদানে সহায়তা করতে ওয়েস্টার্ন ইউনিয়নের মতো প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গেও কথা বলছে ফেসবুক।

-তৌহিদুল ইসলাম তুষার