চীনে ফোন উৎপাদন কমাল স্যামসাং

প্রকাশ: ১০ জুন ২০১৯      

চীনে স্মার্টফোন উৎপাদন কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক হ্যান্ডসেট জায়ান্ট স্যামসাং। গত বুধবার ফোন উৎপাদন কমানোর এই সিদ্ধান্ত জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এনডিটিভির এক প্রতিবেদন বলছে, দেশটিতে সাশ্রয়ী মূল্যে ডিভাইস তৈরির কারণে তীব্র প্রতিযোগিতা এবং বিক্রি কমে যাওয়ায় স্যামসাংয়ের বিক্রি ১ শতাংশের নিচে নেমে যায়। তারই ফলে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। চীনের তিয়ানজিনে একটি সেলফোন উৎপাদন কারখানা বন্ধের মাত্র ছয় মাস পরেই আরও একটি কারখানা বন্ধের ঘোষণা দিল স্যামসাং। বিশ্বের স্মার্টফোন বিক্রিতে এখন প্রথম স্থানে থাকা প্রতিষ্ঠানটির চীনের বাজারে তাদের অবস্থান ১ শতাংশেরও নিচে। স্ট্র্যাটেজি অ্যানালিটিকসের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৩ সালে চীনে তাদের স্মার্টফোন বাজার দখল ছিল প্রায় ২০ শতাংশ। ধারণা করা হচ্ছে, দেশটিতে অ্যান্টি দক্ষিণ কোরিয়া মনোভাবের কারণে ক্রেতারা হুয়াওয়ের মতো দেশীয় স্মার্টফোনের দিকে ঝুঁকছে। কাউন্টার পয়েন্ট রিসার্চের তথ্যমতে, চীনে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে স্যামসাংয়ের স্মার্টফোন বিক্রি ৪০ শতাংশ বেড়েছে। যার অন্যতম কারণ ফ্ল্যাগশিপ মডেল উন্মোচন এবং কম দামে ভালো ফোন বাজারে আনা। গত বুধবার এক বিবৃতিতে স্যামসাং জানিয়েছে, তাদের স্মার্টফোন উৎপাদন কারখানাগুলোর সক্ষমতা বাড়ানোর চেষ্টা চলমান, তা সত্ত্বেও তাদের একটি কঠোর সিদ্ধান্তে পৌঁছতে হয়েছে। স্যামসাংয়ের একজন মুখপাত্র রয়টার্সকে জানিয়েছে, চীনে ডিভাইস উৎপাদন এখন ব্যয়বহুল। যে কারণে ভিয়েতনাম ও ভারতের মতো দেশগুলোকে গুরুত্ব দিচ্ছে স্যামসাং। গুয়াংডং রাজ্যের হুইঝু কারখানা চালু রাখার পক্ষে মত দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। তবে উৎপাদন কমিয়ে আনা হচ্ছে। হুইঝু কারখানার উৎপাদন সক্ষমতা কিংবা কর্মী সংখ্যা নিয়ে মন্তব্য করেনি স্যামসাং। উৎপাদন কমানো হলে কর্মী ছাঁটাই করা হবে কি-না, সে বিষয়েও কোনো তথ্য দেয়নি প্রতিষ্ঠানটি।

তৌহিদুল ইসলাম তুষার