তরুণদের দক্ষতা বাড়াতে ইয়ুথ ডেভেলপমেন্টের উদ্যোগ 'গ্রামীণফোন একপ্লোরারস ২.০' শুরু হয়েছে। সম্প্রতি ওরিয়েন্টেশন সেশনের মাধ্যমে এ কার্যক্রম চালুর ঘোষণা দেয় গ্রামীণফোন। এ আয়োজনে নির্বাচিত ৩৪০ শিক্ষার্থী অংশ নেন। অনুষ্ঠানে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। যোগাযোগ, উদ্যোক্তা এবং ডিজিটাল দক্ষতা বৃদ্ধিতে তরুণদের জন্য গ্রামীণফোনের ইনোভেটিভ আপস্কিলিং উদ্যোগ হচ্ছে জিপি এক্সপ্লোরারস। এ উদ্যোগে ১২ সপ্তাহব্যাপী আপস্কিলিং করা হয়। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, চলতি বছর এ আয়োজন ভার্চুয়াল এবং শারীরিক উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হবে। প্রাথমিকভাবে এ প্রোগ্রামে অংশ নিতে দেশের ৬৭টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে এক হাজার চারশর বেশি শিক্ষার্থী আবেদন করেন। এখান থেকে ৩৫৭ জনকে নির্বাচিত করা হয়।

এ প্রোগ্রামে ইন্টারঅ্যাক্টিভ ডিজিটাল টুলসের মাধ্যমে ৭০ শতাংশ প্রশিক্ষণ হবে অনলাইনে। এছাড়া সমন্বয়মূলক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে থাকবে ৩০ শতাংশ সরাসরি ক্লাস। অনুষ্ঠানে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, একাডেমিক শিক্ষার সঙ্গে সঙ্গে তরুণদের নানা বিষয়ে দক্ষতা বৃদ্ধিতে গুরুত্ব দিতে হবে। গ্রামীণফোনের এ আয়োজন তরুণদের নতুন চ্যালেঞ্জ নিতে সহায়তা করবে। অনুষ্ঠানে গ্রামীণফোনের চিফ ডিজিটাল এবং স্ট্র্যাটেজি কর্মকর্তা সোলায়মান আলম, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশের জনসম্পদ বিভাগের প্রধান সাদ জসিম, গ্রামীণফোনের প্রধান মানবসম্পদ কর্মকর্তা সৈয়দ তানভীর হোসেন প্রমুখ বক্তব্য দেন। গ্রামীণফোনের যোগাযোগ প্রধান খায়রুল বাশার অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন এবং জিপি এক্সপ্লোরার কনসেপ্ট এবং কাঠামোর বিষয়ে ফারহানা ইসলাম একটি প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন।

মন্তব্য করুন