প্রতিদিন ১০ লাখ নতুন গ্রাহক বাড়ার মাধ্যমে চলতি বছরের শেষ নাগাদ ফাইভজি মোবাইল গ্রাহক ৫৮ কোটি ছাড়িয়ে যাবে। এরিকসন তাদের মোবিলিটি প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদন মতে, ফাইভজি ইতিহাসের সবচেয়ে দ্রুত গ্রাহক বৃদ্ধি পাওয়া মোবাইল জেনারেশন হতে যাচ্ছে। ২০২৬ সালের শেষে ফাইভজির গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়াবে ৩৫০ কোটিতে, যা হবে মোট জনসংখ্যার ৬০ শতাংশ। তবে, ফাইভজি প্রযুক্তি গ্রহণ করার প্রবণতা অঞ্চল অনুসারে ভিন্ন। এক্ষেত্রে, ইউরোপের দেশগুলো ধীরগতিতে এগোচ্ছে। ফাইভজি সম্প্রসারণের দৌড়ে চীন, যুক্তরাষ্ট্র, কোরিয়া, জাপান ও গালফ কো-অপারেশন কাউন্সিলের (জিসিসি) দেশগুলোর চেয়ে পিছিয়ে আছে ইউরোপ। ফাইভজি নেটওয়ার্ক ফোরজি এলটিইর সময়সীমার দুই বছর আগেই শতাধিক কোটি গ্রাহকের মাইলফলক অর্জন করবে। এর পেছনে অন্যতম কারণ হচ্ছে, শুরু থেকেই ফাইভজি উন্নয়ন ও বিকাশে চীনের প্রতিশ্রুতি এবং বাণিজ্যিক ফাইভজি ডিভাইসের সহজলভ্যতা এবং ক্রমবর্ধমান সাশ্রয়ী মূল্য। তিন শতাধিক ফাইভজি স্মার্টফোন মডেল ইতোমধ্যেই বাণিজ্যিকভাবে উন্মোচন করা হয়েছে বা উন্মোচনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, উত্তর-পূর্ব এশিয়া হবে ফাইভজি গ্রাহকের সবচেয়ে বড় অঞ্চল। ২০২৬ সালের মধ্যে এই অঞ্চলে আনুমানিক ১৪০ কোটি ফাইভজি গ্রাহক হবে বলে আশা করা হচ্ছে। অন্যদিকে, উত্তর আমেরিকা ও জিসিসি অঞ্চলের বাজার নিয়ে ভাবা হচ্ছে, সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ব্যবহারকারী এ অঞ্চল থেকে ফাইভজি সেবা ব্যবহার শুরু করবে, যেখানে যথাক্রমে সমন্বিতভাবে ফাইভজি গ্রাহক হবে ৮৪ শতাংশ এবং পুরো অঞ্চলের মোবাইলে সেবা ব্যবহারকারী হবে ৭৩ শতাংশ।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও ওশেনিয়া অঞ্চলে মোট মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১২০ কোটি ছাড়িয়েছে, যেখানে ফাইভজি গ্রাহকের সংখ্যা ২০ লাখেরও কম। ধারণা করা হচ্ছে, আগামী বছরগুলোতে ফাইভজি ব্যবহারের সংখ্যা দ্রুতহারে বৃদ্ধি পাবে, যা ২০২৬ সাল নাগাদ আনুমানিক ৪০ কোটিতে। এ অঞ্চলে প্রতি স্মার্টফোনে ডাটা ব্যবহারের মাত্রা বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে বেশি হবে। ২০২৬ নাগাদ প্রতি মাসে একেকটি স্মার্টফোনে ৩৯ জিবি করে ডাটা ব্যবহূত হবে, যা বার্ষিক বৃদ্ধির হারের (সিএজিআর) ৩৬ শতাংশ। ৪২ শতাংশ সিএজিআর নিয়ে সে অনুযায়ী বাড়বে মোবাইল ডেটা ট্রাফিক। ফোরজি ব্যবহার এবং ফাইভজির কারণে প্রতি স্মার্টফোনে ডাটা ব্যবহার বাড়বে ৩৯ইবি পর্যন্ত। এরিকসন বাংলাদেশের প্রধান আব্দুস সালাম বলেন, 'বাংলাদেশের ডিজিটাল যুগে প্রত্যাবর্তনের মূলে রয়েছে মোবাইল প্রযুক্তি। ডিজিটাল ব্যবস্থার উন্নয়নে এর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।

বিষয় : এরিকসন

মন্তব্য করুন