ছোট্ট পরী টিংকার

প্রকাশ: ১৮ অক্টোবর ২০১৯      

চঞ্চল, দুরন্ত, অফুরন্ত প্রাণশক্তির অধিকারী পরী। নিজের চটপটে স্বভাবের জন্য সব সময়ই কোনো না কোনো বিপদে পড়ে সে। তার আছে কিছু অকৃত্রিম বন্ধু। বন্ধুদের সহায়তায় সে ঠিকই নিজেকে বিপদ থেকে বের করে আনে। বিখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ডিজনির অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ডিজনি টোন স্টুডিওর ব্যানারে নির্মিত 'টিংকার বেল' সিরিজটি মূলত তোমাদের জন্যই বানানো। জনপ্রিয় ফ্যান্টাসি অ্যানিমেশন মুভি সিরিজের মধ্যে এটি অন্যতম। এখন পর্যন্ত এই সিরিজের ছয়টি মুভি রিলিজ হয়েছে। ২০০৮ সালে প্রথম 'টিংকার বেল' হিট হওয়ার পর ডিজনি একের পর এক সিকুয়াল বের করতে থাকে। ২০০৯ সালে 'টিংকার বেল অ্যান্ড লস্ট ট্রেজার', ২০১০-এ 'টিংকার বেল অ্যান্ড দ্য গ্রেট ফেয়ারি রিস্কিউ', ২০১১ সালে 'টিংকার বেল অ্যান্ড দ্য মিস্টেরিয়াস উইন্টার উডস' এবং ২০১২ সালে আসে সিক্রেট অব দ্য উইং। এরপর ২০১৪ সালে আসে তাদের আরেকটি সিরিজ 'দ্য পাইরেট ফেয়ারি'।

এটি মূলত পরীদের জগৎ। টিংকারের অজানাকে জানার রয়েছে অদম্য কৌতূহল; সেটা মেটাতে গিয়ে হরেক বাধাবিপত্তিতে পড়ে। এখানে জানতে পারবে পরীদের কাজ সম্পর্কে। তাদের কাজ হলো মেইনল্যান্ডের ঋতুচক্রকে নিয়ন্ত্রণ করা। এ জন্য তাদের সার্বক্ষণিক ব্যস্ত থাকতে হয়। যদি সময়মতো সব প্রস্তুতি ওরা শেষ করতে না পারে, মেইনল্যান্ডের জলবায়ু বদলে গিয়ে তুলকালাম বেঁধে যাবে। আবার ঋতু বদল করার জন্য সব ধরনের পরীদের যাওয়ার নিয়ম নেই মেইনল্যান্ডে। কিন্তু টিংকার এটি মানতে পারে না। কারণ, সেও পড়ে গেছে না যাওয়াদের দলে। তাই, মেইনল্যান্ডে যাওয়া নিয়ে টিংকারের যত কাণ্ডকারখানা নিয়েই এই মুভি। দ্বিতীয় সিরিজে টিংকার বেলের ওপর দায়িত্ব মুনস্টোনের ধারক হিসেবে একটি চ্যাপ্টার তৈরি করার। মানুষের সঙ্গে দেখা হওয়ার কথা নয় পরীদের। আসলে পরীদের জন্য ব্যাপারটা আইনত নিষিদ্ধ। তবু টিংকার বেল বলে কথা। এসব নিয়মের ধার ধারলে কি আর নিয়মের পেছনের কারণটা জানা যাবে? তাই টিংকার এগিয়ে যায় মনুষ্য সমাজে। পরের সিরিজটিতে দেখা যায়, উষ্ণ এলাকার পরীদের জন্য নিষিদ্ধ থতুন্দ্রা অঞ্চলে যায় টিংকার। তৈরি হয় একঝাঁক বিপত্তি। কিন্তু এবারের কাহিনী কিছুটা অন্যরকম। টিংকারের জীবনে ঘটে গেল এক অভাবনীয় কাণ্ড। ২০১৪ সালে মুক্তি পায় সিরিজের পঞ্চম সিরিজ। এই মুভিতে দেখা যায় 'জারিনা' নামের নতুন এক পরীকে। সে কৌতূহলের দিক দিয়ে টিংকারের আরেক প্রতিমূর্তি, যে টিংকারকে প্রতিনিয়ত বিপদে ফেলে। একটা জমজমাট অ্যাডভেঞ্চার গল্প নিয়েই ঘুরেছে মুভিটা। সবকিছুর সমাধান জানতে হলে দেখতে হবে টিংকার বেলের সব সিরিজ।

লেখা : তাবাসসুম রহমান