ফ্যাশনে হালকা রঙ

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

ফ্যাশন জগতে এখন নিত্যনতুন যুক্ত হচ্ছে নানা বিষয়। কখনও বা প্যাটার্নে, কখনও বা ডিজাইনে, কখনও বা কাটের ক্ষেত্রে এসেছে বৈচিত্র্য। বাদ যায়নি রঙও। এখন শুধু নির্দিষ্ট কিছু রঙের মধ্যেই সীমাবদ্ধতা নেই, বরং সব রঙ বিভিন্ন শেড নিয়ে হাজির। কোন শেড কখন মানানসই হবে এগুলো নিয়ে হয়েছে নানা কাজ। বর্তমান সময়ের বিশেষ করে গরমের সময়টায় অন্যতম ট্রেন্ড প্যাস্টেল কালার। মূলত হালকা রঙগুলোই প্যাস্টেল কালার হিসেবে পরিচিত। এ ধরনের রঙের তীব্রতা অনেক কম থাকে। ফলে চোখের জন্য বেশ আরামদায়ক হয়। প্যাস্টেল লাইনে বলা যেতে পারে বেবি পিঙ্ক, বেবি ব্লু, মিন্ট, ল্যাভেন্ডার, ক্রিম, সবুজ ইত্যাদির কথা। মূল রঙের একদম হালকা শেডগুলোই প্যাস্টেল কালারের অন্তর্ভুক্ত।

কয়েক বছর ধরেই ফ্যাশন ট্রেন্ডে প্যাস্টেল রঙ তার উপস্থিতির জানান দিচ্ছিল। এ ধরনের রঙের বেশ ব্যবহার দেখা যাচ্ছে সব ধরনের ফ্যাশন প্রোডাক্টে। পোশাক নয় শুধু। অ্যাক্সেসরিজেও প্যাস্টেলের দাপট। এমনকি মেকআপেও তাই।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে বলতে গেলে এই রঙগুলো বেশ মানানসই। উষ্ণ আবহাওয়ায় হালকা রঙের প্রাধান্য থাকবে। কারণ, হালকা রঙমাত্রই আলোর প্রতিফলনে ভূমিকা রাখে। তাপ শোষণ করে কম। আরামদায়কের গুরুত্ব অপরিসীম। পোশাক পরিধানে যে বিষয়ের সঙ্গেই মানিয়ে নেওয়া যাক না কেন, কোনোভাবেই স্বস্তির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া যায় না। একশ'তে একশ' চাই এ ক্ষেত্রে। প্যাস্টেল চোখে এক ধরনের শান্তি প্রদান করে। উৎকট রঙের কটকটে ভাব এতে নেই। তাই যিনি এই রঙের পোশাক পরেন, তিনিসহ আশপাশের মানুষের মধ্যেও একটি স্বস্তি আর সজীবতার অনুভূতি তৈরি হয়।

১৯৮০ সালের দিকে পুরুষের পোশাকে এই প্যাস্টেল কালারের ব্যবহার শুরু হয়। এনবিসি টিভি সিরিজ 'মায়ামি ভাইস'-এর প্রধান চরিত্র সনি ক্রকেট এই প্যাস্টেল কালারের পোশাক পরত। পরবর্তী সময়ে ধীরে ধীরে এই ট্রেন্ডটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। মেয়েদের পোশাকেও এই রঙের ব্যবহার শুরু হতে থাকে। প্যাস্টেল কালারের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো- একটি প্যাস্টেল কালারের সঙ্গে খুব সহজেই অন্য প্যাস্টেল কালার ম্যাচিং করে নেওয়া যায়। আবার ফরমাল বা ক্ল্যাসিক লুক, কিংবা ক্যাজুয়াল, ফাঙ্কি সব ধরনের লুকের জন্যই কালারগুলো মানানসই। সফট একটা লুক তৈরি করতে বেশ সাহায্য করে, যা এই আবহাওয়ার সঙ্গে বেশ মানানসই।

ওয়েস্টার্ন বাদে দেশীয় কাটের জামার মধ্যেও এখন দেখি এই প্যাস্টেল কালারের ব্যবহার। এখন জুতা আর ব্যাগের মধ্যে হরহামেশাই এই প্যাস্টেল কালার ব্যবহার করা হচ্ছে। জিন্স আর টপসের মধ্যে এই রঙ বেশ চমৎকার লাগে, সঙ্গে সাদা স্নিকার পরতে পারেন।

যারা গাঢ় রঙের ভক্ত বা শুধু সাদাকালোর মধ্যে সীমাবদ্ধ, তারাও তাদের লুকে যোগ করতে পারেন এই প্যাস্টেল কালার। যেমন কালো টি-শার্টের সঙ্গে প্যাস্টেল সবুজ প্যান্ট। এর সঙ্গে সাদা স্নিকার বা ক্যানভাস জুতা। আবার সাদা পালাজ্জোর সঙ্গে প্যাস্টেল গোলাপি রঙের কুর্তা। হাতের পার্স থেকে শুরু করে পিঠের ব্যাগের মধ্যেও রয়েছে প্যাস্টেল কালারের নানা অপশন। তাই জামার সঙ্গে মিলিয়ে পছন্দমতো ব্যাগ নিতে ভুলবেন না যেন। গাড় বা হালকা দুই ধরনের মেকআপ লুকই এ রঙের সঙ্গে মানানসই। ফলে মেকআপের ক্ষেত্রে আর কোনো নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চলার প্রয়োজন নেই।

ছেলেদের জন্য প্যাস্টেল কালার বেশ আরামদায়ক হবে। কন্ট্রাস্ট করে পরতে পারেন। যেমন, প্যান্টের রঙ ভারি হলে টি-শার্টটি প্যাস্টেল কালারের। এখন প্যাস্টেল কালারের প্যান্টও পাওয়া যাচ্ছে। ক্যাজুয়াল লুকের জন্য টি-শার্ট সেরা হলেও একটু ফরমাল লুকের জন্য শার্টই সবচেয়ে ভালো। শার্টের মধ্যে প্যাস্টেল কালারের নানা অপশন রয়েছে। ফলে বাছাই করা খুব একটা মুশকিল হবে না। প্যান্টের মধ্যেও রয়েছে প্যাস্পেল কালারের অপশন। তাই ফরমাল হোক আর ক্যাজুয়াল, নিজেকে সেরা দেখার জন্য সুযোগের অভাব নেই।

জুতার মধ্যেও রয়েছে এখন প্যাস্টেল কালারের ব্যবহার। কোথাও বেড়াতে গেলে প্যাস্টেল রেইনবো অথবা দু-তিনটি প্যাস্টেল কালারের সমন্বয়ে স্ট্রাইপ দেওয়া পোশাক পরতে পারেন। স্ট্রাইপের পাশাপাশি পল্ক্কা ডটের জামাও বেশ মানাবে। প্যাস্টেলের পোশাক এক রঙ হতেই হবে, এমন কোনো ব্যাকরণ নেই। ফ্লোরাল প্রিন্টেও প্যাস্টেল দারুণ। যে কোনো প্যাস্টেলের সঙ্গে সাদার মিশেল করে নিতে পারেন কোনো ভাবনা ছাড়াই। প্যাস্টেলের সঙ্গে সাদা মানিয়ে যায়। কালোর সঙ্গে কম্বিনেশনও আকর্ষণীয়। প্যাস্টেলের সঙ্গে সাদা কালো বাদে অন্য কোনো রঙ মেলাতে গেলে একটু ভাবুন। উজ্জ্বল কিছুর সঙ্গে মেলবন্ধন তেমনভাবে আকর্ষণীয় লাগবে না।

অলঙ্করণে প্যাস্টেলে ব্লক, এমব্রয়ডারি আর জারদৌসি মানাবে। সুতার রঙের বিষয়ে খেয়াল রাখুন। অতি উজ্জ্বল কোনো রঙ বেছে না নিয়ে একটু অফশেডে থাকুন। লেইস বা অন্য কোনো অনুষঙ্গ ব্যবহারের ক্ষেত্রেও এ ধরনের বিষয় মনে রাখুন।

দেশি ব্র্যান্ড মিথ শরৎকালকে ঘিরে প্যাস্টেল রঙ পোশাকের আয়োজন করেছে। ছেলেমেয়ে উভয়ের পোশাক লাইনেই প্যাস্টেল পণ্য। মিথের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জুনায়েদ রহমান তাদের নতুন এ সংগ্রহ সম্পর্কে বলেন, 'প্যাস্টেল রঙ বিশ্ব ফ্যাশনের বর্তমান ট্রেন্ড। আমাদের দেশের সচেতন মানুষ ফ্যাশন দুনিয়ার সব খবরই রাখে। তাই ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন ট্রেন্ডকে সব সময়ই গুরুত্ব দেয় মিথ। এর সঙ্গে আমাদের দেশের আবহাওয়া মাথায় রেখে প্যাস্টেল শেডের পোশাক বাজারে হাজির করেছি। ছেলেমেয়ে সবার জন্যই আমাদের প্যাস্টেল রঙের আয়োজন।'

প্যাস্টেল কালারের সুবিধা অনেক, অসুবিধা সামান্য। বর্ষার দিনে কাদাপানি লেগে সহজেই নষ্ট হয়ে যেতে পারে। যেহেতু হালকা রঙের পোশাক, তাই দাগ লাগলে তা তোলা খানিকটা মুশকিলের কাজ। এই পোশাক পরার সময় তাই একটু সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।