জেলায় জেলায় যুক্তির উৎসব

প্রকাশ: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

শুরু হয়েছে বিএফএফ-সমকাল জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসব ২০২১। উৎসবের জেলা পর্যায়ের প্রতিযোগিতা ১৮, ১৯ ও ২০ ফেব্রুয়ারি রংপুর, দিনাজপুর, গাইবান্ধা, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর, নওগাঁ, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর, খুলনা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, সাতক্ষীরা ও নড়াইলে অনুষ্ঠিত হয়। সমকাল সুহৃদ সমাবেশের আয়োজনে ও বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের (বিএফএফ) সহযোগিতায় উৎসবের বিশেষ সহযোগী হিসেবে রয়েছে প্রফেসরস কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স। আয়োজনের প্রথম কিস্তি প্রকাশিত হলো আজ



রংপুর

রংপুর পাবলিক লাইব্রেরিতে অনুষ্ঠিত জেলা পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ইন্টারন্যাশনাল গ্রামার স্কুল (আইজিএস)। রানার্সআপ হয়েছে কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজ। প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া অন্য দলগুলো হলো- ক্যান্ট. পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, রংপুর জিলা স্কুল, বিয়াম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, রংপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, শিশুনিকেতন উচ্চ বিদ্যালয় ও পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ। দিনব্যাপী এ বিতর্ক উৎসবে প্রধান অতিথি ছিলেন রংপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ছাফিয়া খানম। অতিথি ছিলেন তানবীর হোসেন আশরাফী, সেরাফুল হোসেন হিমেল, রেজাউল ইসলাম মিলন, হাসেম আলী, এহসানুল হক সুমন, রাকিব হাছান লিখন, নভেল চৌধুরী, একরামুল হক শাওন, আরমান হোসেন, মুশফিক খান, অর্জুন দাস প্রমুখ।

দিনাজপুর

দিনাজপুর সারদেশ্বরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় আটটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। এতে দিনাজপুর সারদেশ্বরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন এবং আমেনা বাকী রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ রানার্সআপ হয়। শ্রেষ্ঠ বক্তা হয় চ্যাম্পিয়ন দলের প্রতিযোগী লায়লাতুন রোজ। প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া অন্য দলগুলো হলো- মনিরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজ, জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়, দিনাজপুর জিলা স্কুল, চেহেলগাজী শিক্ষা নিকেতন ও ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ। প্রধান অতিথি ছিলেন দিনাজপুরের পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন। প্রতিযোগিতার মডারেটর দিনাজপুর সরকারি কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ড. মাসুদুল হক, সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুজন সরকার, সারদেশ্বরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রতন কুমার রায়।

গাইবান্ধা

গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় গাইবান্ধা সরকারি উচ্চ বালক বিদ্যালয় দল চ্যাম্পিয়ন এবং গাইবান্ধা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও এসকেএস স্কুল অ্যান্ড কলেজ দল যৌথভাবে রানার্সআপ হয়। শ্রেষ্ঠ বক্তা হয়েছে চ্যাম্পিয়ন দলের দলনেতা মাসুম বিল্লাহ। প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া অন্য দলগুলো হলো- আহম্মদ উদ্দিন শাহ শিশু নিকেতন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সুন্দরগঞ্জের বেলকা মজিদপাড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সাঘাটার বোনারপাড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজ, গোবিন্দগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও ফুলছড়ি পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। সুহৃদ সভাপতি অঞ্জলী রানী দেবীর সভাপতিত্বে সকালে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহ সারোয়ার কবীর। বক্তব্য দেন অধ্যাপক মো. খলিলুর রহমান, সুহৃদ উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা মকছুদার রহমান শাহান, সমকাল প্রতিনিধি উজ্জল চক্রবর্ত্তী প্রমুখ।

কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রামের খলিলগঞ্জ স্কুল অ্যান্ড কলেজ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় কুড়িগ্রাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় দল চ্যাম্পিয়ন এবং ঘোগাদহ মালেকা খাতুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় রানার্সআপ হয়েছে। শ্রেষ্ঠ বক্তা হয়েছে রানার্সআপ দলের দলনেতা উম্মে হাদিয়া। অন্য দলগুলো হলো- কুড়িগ্রাম কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজ, খলিলগঞ্জ স্কুল অ্যান্ড কলেজ, কুড়িগ্রাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, লক্ষ্মীকান্ত আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, এমএ সাত্তার আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, মধ্যকুমোরপুর গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, দাশেরহাট মডেল হাইস্কুল এবং ঘোগাদহ মালেকা খাতুন বালিকা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। সুহৃদ সভাপতি মাহবুবার রহমান মোবিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন অধ্যাপক মো. আবু যোবায়ের আল মুকুল, ইলিয়াস আহমেদ ও প্রভাষক মো. সামিউল উসলাম।

পঞ্চগড়

পঞ্চগড় সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় পঞ্চগড় বিপি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় দল চ্যাম্পিয়ন এবং মাঘই পানিমাছপুকুরী উচ্চ বিদ্যালয় দল রানার্সআপ হয়। অন্য দলগুলো হলো- পঞ্চগড় সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পৌর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, ফুটকিবাড়ি স্কুল অ্যান্ড কলেজ, অমরখানা উচ্চ বিদ্যালয়, শহীদ পুলিশ স্মৃতি স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার কলেজিয়েট ইনস্টিটিউট। সুহৃদ আহ্বায়ক রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পঞ্চগড় মকবুলার রহমান সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. দেলওয়ার হোসেন প্রধান।

ঠাকুরগাঁও

ঠাকুরগাঁও প্রেস ক্লাবের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয় ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় দল এবং রানার্সআপ হয় ঠাকুরগাঁও সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় দল। শ্রেষ্ঠ বক্তা হয় চ্যাম্পিয়ন দলের মহুয়া আক্তার। অন্য দলগুলো হলো- পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আর কে স্টেট উচ্চ বিদ্যালয়, আমানতউল্লাহ ইসলামী একাডেমি, কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ইকো পাঠশালা ও কলেজ এবং মথুরাপুর পাবলিক হাইস্কুল। প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন ঠাকুরগাঁও প্রেস ক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী। বিচারক ছিলেন শিক্ষক কমল কুমার রায়, প্রভাষক আনছারুল ইসলাম, আলমগীর হোসেন এবং মডারেটর ছিলেন প্রভাষক এন্তাজুল ইসলাম।

লালমনিরহাট

লালমনিরহাট নর্দান প্রি-ক্যাডেট অ্যান্ড কিন্ডারগার্টেন স্কুলে অনুষ্ঠিত বিতর্ক প্রতিযোগিতায় ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ চ্যাম্পিয়ন ও বর্ডার গার্ড পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ রানার্সআপ হয়। শ্রেষ্ঠ বক্তা হয় চ্যাম্পিয়ন দলের বিতার্কিক তাসনুভা ইসলাম মেধা। অন্য দলগুলো হলো- নয়াহাট উচ্চ বিদ্যালয়, লালমনিরহাট সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, ফাকল পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং কালেক্টরেট কলেজিয়েট স্কুল। মডারেটর ছিলেন প্রভাষক মোহাম্মদ গোলাম ফারুক।

রাজশাহী

রাজশাহী কলেজ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় রাজশাহী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়কে হারিয়ে জেলা পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে গভ. ল্যাবরেটরি হাইস্কুল। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয় চ্যাম্পিয়ন দলের সানজাদ বিন আনোয়ার। অন্য দলগুলো হলো- সরকারি পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, গভ. ল্যাবরেটরি হাইস্কুল, সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল। সমকালের রাজশাহী ব্যুরোপ্রধান সৌরভ হাবিবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সদর আসনের সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা। অতিথি ছিলেন রাজশাহী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আব্দুল খালেক, ফোকলোর বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম কনক প্রমুখ।

কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় কুষ্টিয়া জিলা স্কুল চ্যাম্পিয়ন এবং কলকাকলি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রানার্সআপ হয়। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয় চ্যাম্পিয়ন দলের দলনেতা আসওয়াদ আহমেদ জিম। অংশ নেওয়া অন্য দলগুলো হলো- কুষ্টিয়া সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, কালেক্টরেট স্কুল, পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ, দি ওল্ড হাইস্কুল, দহকুলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ঝাউদিয়া বাজার মাধ্যমিক বিদ্যালয়। প্রতিযোগিতা উদ্বোধন করেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী।

নাটোর

সকালে নাটোর নববিধান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রমজান আলী আকন্দ। যুক্তিতর্কের লড়াইয়ে অংশ নেয় নাটোর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, নাটোর কালেক্টরেট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, নাটোর পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ, নলডাঙ্গা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, নলতা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও শের-ই-বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়। বিজয়ী হয় নাটোর সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় এবং রানার্সআপ হয়েছে নলডাঙ্গা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. শাহরিয়াজ।

নওগাঁ

জেলা প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় নওগাঁ কেডি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এবং রানার্সআপ নামাজগড় গাউসুল আজম কামিল মাদ্রাসা। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয় রানার্সআপ দলের বিতার্কিক আরমান হোসেন। অন্য স্কুলগুলো হলো- সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পিএম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, চক এনায়েত উচ্চ বিদ্যালয়, বাচারীগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়, জিলা স্কুল ও হাট-নওগাঁ উচ্চ বিদ্যালয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা তথ্য অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবু সালেহ মো. মাসুদুল ইসলাম। প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন নওগাঁ সরকারি কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলাম খান এবং পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে জেলা তথ্য কার্যালয়ের উপপরিচালক আবু সালেহ মো. মাসুদুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সুহৃদ সমাবেশের জেলা সভাপতি গুলশান আরা।

খুলনা

খুলনা প্রেস ক্লাবের হুমায়ুন কবির বালু মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় জেলার আটটি স্কুল। এতে সরকারি করোনেশন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় দল চ্যাম্পিয়ন এবং খুলনা জিলা স্কুল দল রানার্সআপ হয়। চ্যাম্পিয়ন দলের দলনেতা রুকছানা রহমান মলি সেরা বক্তা নির্বাচিত হয়। অংশ নেওয়া অন্য দলগুলো হলো- বিএন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সেন্ট যোসেফস উচ্চ বিদ্যালয়, কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজ, খুলনা পাবলিক কলেজ, ফাতিমা উচ্চ বিদ্যালয় ও সরকারি ইকবালনগর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়। সকালে প্রধান অতিথি হিসেবে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক।

যশোর

যশোর শিল্পকলা একাডেমির আর্ট গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় যশোর জিলা স্কুল চ্যাম্পিয়ন ও সকিনা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় রানার্সআপ হয়। সেরা বিতার্কিক নির্বাচিত হয় চ্যাম্পিয়ন দলের ওহিদুজ্জামান গালিব। অংশ নেওয়া অন্য দলগুলো হলো- যশোর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, যশোর কালেক্টরেট স্কুল, ডাকাতিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, যশোর বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শংকরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও নওয়াপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়। সকালে প্রতিযোগিতা উদ্বোধন করেন যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম।

পাবনা

পাবনা প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে জেলার আটটি স্কুলের শিক্ষার্থীরা প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। চ্যাম্পিয়ন হয় পাবনা জিলা স্কুল এবং রানার্সআপ পাবনা কালেক্টরেট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ। জিলা স্কুলের রেদোয়ানুল ইসলাম শ্রেষ্ঠ বিতার্কিক নির্বাচিত হয়। এ ছাড়া অংশ নেয় পাবনা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, স্কয়ার হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ, গোপাল চন্দ্র ইনস্টিটিউট (জিসিআই), ইমাম গায্‌যালী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, পাবনা সেন্ট্রাল গার্লস হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং ছিদ্দিক মেমোরিয়াল হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ। পরে প্রধান অতিথি হিসেবে বিজয়ীদের মধ্যে ক্রেস্ট ও সনদপত্র বিতরণ করেন পাবনার পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান। সকালে পাবনার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জাহেদ নেওয়াজ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন। সমকালের স্টাফ রিপোর্টার এবিএম ফজলুর রহমানের সভাপতিত্বে উদ্বোধন ও সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন পাবনা বীর মুক্তিযোদ্ধা রবিউল ইসলাম রবি, পাবনা সংবাদপত্র পরিষদ সভাপতি আব্দুল মতীন খান, পাবনা প্রেস ক্লাবের সম্পাদক সৈকত আফরোজ আসাদ।া