ক্রাইস্টচার্চ টেস্ট নিয়ে নিউজিল্যান্ডের মাতামাতি ব্রেন্ডন ম্যাককুলামকে ঘিরে। কিউই অধিনায়ক খেলতে নামছেন ক্যারিয়ারের শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ। দুই সপ্তাহ আগে সব টিকিট বিক্রি শেষ তো বটেই, নিউজিল্যান্ডের মিডিয়ায় 'বাজ'কে নিয়ে এখন তুমুল আলোচনা। ম্যাককুলাম মাঠে নামার পর বা আউট হয়ে ফিরে যাওয়ার সময় তাকে বিদায়ী সম্মান জানাবেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররাও। তবে ম্যাককুলামের মঞ্চে বড় উল্লাসের উপলক্ষ চায় স্টিভেন স্মিথের দল। ইনিংস ও ৫২ রানে ওয়েলিংটন টেস্ট জিতে নেওয়া অস্ট্রেলিয়ার লক্ষ্য সিরিজ জয়। নূ্যনতম ড্র করতে পারলে সিরিজের সঙ্গে আসবে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানও।
এ মুহূর্তে ১০৯ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে আছে অসিরা। এক পয়েন্ট বেশি নিয়ে সবার ওপরে ভারত।
সামনে যখন টি২০ বিশ্বকাপের হাওয়া, অস্ট্রেলিয়ার তখন টেস্ট সাম্রাজ্য উদ্ধারের লক্ষ্য মূলত অ্যাওয়েতে নিজেদের শক্তিশালী করা নিয়ে। নিজেদের মাঠে ধারাবাহিকভাবে সাফল্য পেলেও প্রতিপক্ষের মাঠে খুব একটা ভালো করতে পারছে না রিকি পন্টিং-উত্তর অস্ট্রেলিয়া। অ্যাওয়েতে অস্ট্রেলিয়ার সর্বশেষ টেস্ট সিরিজ জয় এসেছে ২০১৫ সালের শুরুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজে। তার আগের সাফল্য ২০১০ সালে নিউজিল্যান্ডে।
এবার প্রতিবেশী দেশটির মাটি থেকেই অ্যাওয়ে-রাজত্ব শুরু করতে চায় স্মিথের দল। এর মধ্যেই টেস্ট-ওয়ানডে-টি২০- তিন ফরম্যাটের দায়িত্ব নিয়েছেন স্মিথ। মাইকেল ক্লার্ক যুগে অস্ট্রেলিয়া দলে পা রাখা জন হ্যাস্টিং গত সপ্তাহে এক সাক্ষাৎকারে বলছিলেন, 'অস্ট্রেলিয়ার টিম কালচার ইতিবাচকভাবে অনেকখানি বদলে গেছে। ড্যারেন লেম্যান-স্মিথের দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে আগের চেয়ে একে অপরের বোঝাপড়া খুবই ভালো।'
পন্টিং যুগের বেশ কয়েকজনকে নিয়েই শুরু হয়েছিল মাইকেল ক্লার্কের যুগ। তবে স্মিথ যুগ প্রায় পুরোটাই নতুন দশকের ক্রিকেটারে গড়া। একদিনের ক্রিকেটে শীর্ষস্থানে থাকা অস্ট্রেলিয়া টেস্টেও শীর্ষস্থান দখল করে এগোতে চায় পরবর্তী বিশ্বকাপকে লক্ষ্য করে।

মন্তব্য করুন