বার্নাব্যু ট্রফি রিয়ালের

প্রকাশ: ২৫ আগস্ট ২০১৭

স্পোর্টস ডেস্ক

ম্যাচটি প্রতিযোগিতামূলক ছিল না, প্রীতি ম্যাচ। যার নাম বার্নাব্যু ট্রফি। পাঁচ ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও ফিওরেন্টিনার বিপক্ষে খেলতে কোনো বাধা ছিল না ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। বুধবার রাতে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর গ্যালারিজুড়েই ছিল রোনালদোর নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে স্প্যানিশ ভাষায় লেখা ব্যানার। ভক্তদের ভালোবাসা দেখে রোনালদোও যেন নিজেকে উজাড় করে দেওয়ার মানসিকতা নিয়ে নামেন। আপিল খারিজ হওয়ার পর ঘোষণা দিয়েছিলেন আরও শক্তিশালী হয়ে ফিরবেন, সেটা মাঠেই দেখিয়েছেন সিআর সেভেন। গোল করে ও গোলে সহায়তা করে বার্নাব্যুর রাজা বনে গেলেন পর্তুগিজ তারকা। তার অসাধারণ নৈপুণ্যে পিছিয়ে পড়েও ফিওরেন্টিনাকে ১-২ গোলে হারিয়ে বার্নাব্যু ট্রফি জিতেছে লস ব্লাঙ্কোসরা।
সাবেক সভাপতি সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর নামানুসারে মৌসুমের শুরুর দিকে এই ম্যাচ খেলে রিয়াল মাদ্রিদ। এবারের ৩৯তম আসরে এটা জিনেদিন জিদানের দলের ২৭তম শিরোপা। গতবার ফ্রান্সের রাসকে হারিয়ে ট্রফি জিতেছিল স্প্যানিশ জায়ান্টরা। এবার রিয়ালের কাছে ধরাশায়ী ফিওরেন্টিনা। ম্যাচটি প্রীতি বলেই শুরুর একাদশে দলের কয়েকজন সেরা তারকা গোলরক্ষক কেইলর নাভাস, কাসিমেরো, লুকা মডরিচ, টনি ত্রুক্রস, ইসকো, গ্যারেথ বেল ও করিম বেনজেমাকে নামানকি কোচ জিদান। তবে আগেই ঘোষণা দিয়েছিলেন ফিটনেস ধরে রাখার জন্য রোনালাদোকে পুরো ৯০ মিনিট খেলাবেন। সেই কথা রেখেছেন রিয়াল কোচ। আর গুরুর আস্থার প্রতিদান দিতে ভুল করেননি পর্তুগিজ তারকা। গোল করে সবাইকে জানিয়ে দিয়েছেন বাইরে থাকলেও ফর্মটা আগের মতোই আছে।
শুরুতে ম্যাচের গল্পটা অন্যরকম হওয়ার ইঙ্গিত দেয় ফিওরেন্টিনা। ম্যাচের ৪ মিনিটে পিছিয়ে পড়ে রিয়াল। ডি-বক্সের বাইরে থেকে জোরালো শটে গোল করে ইতালিয়ান ক্লাবটিকে এগিয়ে নেন জর্ডান ভেরেতু। দুই মিনিট পরই সমতায় ফেরে লস ব্লাঙ্কোসরা। বাঁদিক থেকে রোনালদোর বাড়ানো বল অনায়াসে জালে পাঠান রিয়াল মাদ্রিদের একাডেমি থেকে উঠে আসা বোরজা মায়োরাল। গোলে অ্যাসিস্ট করার পর ৩৩ মিনিটে নিজেই গোল করেন রোনালদো। স্প্যানিশ সুপার কাপের প্রথম লেগে ন্যু ক্যাম্পে বার্সেলোনার বিপক্ষে যেভাবে গোল করেছেন, এদিন ঠিক একইভাবে ফিওরেন্টিনার জাল কাঁপান চারবারের বর্ষসেরা ফুটবলার। বাঁ দিক থেকে কোনাকুনি শটে ডান পোস্ট ঘেঁষে রোনালদোর শট চলে যায় জালে। এরপর আর কোনো গোল হয়নি।