লক্ষ্যভেদের প্রত্যাশা!

প্রকাশ: ০৭ এপ্রিল ২০১৮      

ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি, গোল্ড কোস্ট

এই গেমসে আর কোনো খেলা থেকে বাংলাদেশের কিছু পাওয়ার আশা নেই, একমাত্র শুটিং ছাড়া। কমনওয়েলথ গেমসের পরিসংখ্যানই বলে দেয়, এই খেলাটিকে ঘিরে কেন এত প্রত্যাশা। এর আগে আটটি কমনওয়েলথ গেমস থেকে বাংলাদেশের অর্জন দুটি মাত্র স্বর্ণ। দুটি সাফল্যই এসেছে শুটারদের লক্ষ্যভেদী নৈপুণ্যে। এবারও যাবতীয় আশা-ভরসার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে শুটিং। প্রাপ্তিযোগ যদি কিছু হয় তো শুটিংয়েই হতে পারে।

গোল্ড কোস্ট কমনওয়েলথ গেমসের ২১তম আসরে শুটিংয়ের পদক লড়াই শুরু হবে আগামীকাল রোববার থেকে। বাংলাদেশের ৬ পুরুষ ও ৬ নারী শুটার অংশ নিচ্ছেন এতে। ব্রিসবেনের বেলমন্ট শুটিং সেন্টারে কাল প্রথম দিনে পুরুষদের ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে লক্ষ্যভেদের প্রতিযোগিতায় নামবেন রাব্বি হাসান মুন্না ও রিসালাতুল ইসলাম। একই দিনে মেয়েদের ১০ মিটার এয়ার পিস্তলে লড়বেন আরদিনা ফেরদৌস ও আরমিন আশা।

বাংলাদেশ শুটিং স্পোর্ট ফেডারেশনের মহাসচিব ইন্তেখাবুল হামিদ অপু জানান, শুটাররা মানসিকভাবে চাঙ্গা রয়েছেন। প্রস্তুতিও ভালো। তাই আশা করছেন, শুটাররা এই গেমস থেকে দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনবেন। শুটিং নিয়ে এমন প্রত্যাশা অবশ্য অমূলক নয়। ১৯৯০ সালে অকল্যান্ড কমনওয়েলথ গেমসে এয়ার পিস্তল থেকে আতিকুর রহমান ও আবদুস সাত্তার নিনির সৌজন্যে প্রথম স্বর্ণ জয়ের স্বাদ পায় বাংলাদেশ। এরপর ২০০২ সালে ম্যানচেস্টার গেমসে এয়ার রাইফেলে আসিফ হোসেন খান স্বর্ণ জেতেন। ২০০৬ সালে মেলবোর্নে দলগত রৌপ্য, ২০১০-এ নয়াদিল্লিতে দলগত ইভেন্টে ব্রোঞ্জ জেতে বাংলাদেশ। সর্বশেষ গত আসরে অর্থাৎ ২০১৪ সালে গ্লাসগোতে দেশকে রৌপ্য পদক এনে দেন আবদুল্লাহ হেল বাকী। এবার বাকীর হাত ধরে আরও ভালো কিছু আসবে বলে প্রত্যাশা সবার। তার ইভেন্ট ৫০ মিটার রাইফেল প্রোন এবং ৫০ মিটার রাইফেল থ্রি পজিশন। প্রথম ইভেন্টটি ১০ এপ্রিল, অন্যটি ১৪ এপ্রিল।