টি২০ ক্রিকেট ফুটবলের মতো হচ্ছে :জয়াবর্ধনে

প্রকাশ: ০৭ এপ্রিল ২০১৮      

স্পোর্টস ডেস্ক

একসময় ক্রিকেট ছিল অনির্দিষ্ট সময়ের খেলা। সাদা পোশাকে হওয়া সেই খেলা এরপর বাঁধা পড়ল সময়ের সীমায়, টেস্ট ক্রিকেট হয়ে গেল পাঁচ দিনের। এরপর একদিন এলো ওয়ানডে, মোটামুটি ১০ ঘণ্টার মধ্যেই খেলা শেষ। কিন্তু ব্যস্ত জীবনে এত সময় বের করাটাও বেশ কঠিন। অতঃপর আগমন ঘটল টি২০ ক্রিকেটের। শুরুতে কেবলই মজার ছলে খেলা এ ফরম্যাটটাই একটা সময় হয়ে উঠল ক্রিকেটের সবচেয়ে দর্শকপ্রিয় সংস্করণ। তিন ঘণ্টায় ষোলোআনা বিনোদন, দর্শক দেখবে না-ই বা কেন!

বিভিন্ন দেশ যখন নিজেদের টি২০ লীগ চালু করল, নিলামে ক্রিকেটার কেনাবেচা শুরু হলো, তখনই অনেকটাই পাল্টে গেল এই ফরম্যাটের খোলনলচে। আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া আইপিএলেই যেমন নতুন সংযোজন হিসেবে থাকছে টুর্নামেন্টের মাঝপথে খেলোয়াড় বদলির নিয়ম। অনেকটা ফুটবলের মিড-সিজন ট্রান্সফারের ক্রিকেটীয় সংস্করণ। টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স দলের কোচ মাহেলা জয়াবর্ধনে তো বলেই ফেললেন, ক্লাব ফুটবলের দিকেই ছুটছে টি২০ লীগগুলো।

টুর্নামেন্টের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে নিজের বক্তব্যে শ্রীলংকার সাবেক এই ব্যাটসম্যান বলেন, 'টি২০ ক্রিকেটটা আসলে ক্লাব ফুটবলের মতোই হয়ে যাচ্ছে। এখানে এখন মিড-সিজন ট্রান্সফারের মতো একটা ব্যাপারও চালু হচ্ছে। নতুন নতুন প্রযুক্তি আসছে, ক্রিকেটারদের পেছনে ক্লাবগুলোর বিনিয়োগ বাড়ছে। একদিক দিয়ে ভাবলে এটা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্যও বেশ ভালো একটা ব্যাপার। আপনি যদি ভারতের ওয়ানডে এবং টি২০ দলটা দেখেন, তাহলে বেশ কিছু ক্রিকেটার দেখবেন যারা আইপিএলে ভালো খেলে নির্বাচকদের নজরে পড়েছিল। এটা তাই দিনশেষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকেই সাহায্য করব, আমি এতে কোনো সমস্যা দেখি না।'

শ্রীলংকার হয়ে ১৪৯টি টেস্ট খেলা জয়াবর্ধনে মনে করেন, সাম্প্রতিক সময়ে টেস্ট ম্যাচে ড্রয়ের সংখ্যা কমে জয়-পরাজয়ের সংখ্যা বাড়ার পেছনেও বড় ভূমিকা টি২০ ক্রিকেটের। তিনি বলেন, 'টি২০ ফরম্যাটে খেলার ফলে ক্রিকেটারদের দক্ষতা বাড়ছে। আপনি এখনকার টেস্ট ক্রিকেটের দিকে তাকান। প্রায় ৮০-৯০ শতাংশ খেলাতেই জয়-পরাজয় দেখা যাচ্ছে। এটা যে কোনো অর্থে বেশ ভালো একটা পরিবর্তন। এখনকার ব্যাটসম্যানরা অনেক দ্রুত রান তুলতে পারে, বোলারদের উইকেট নেওয়ার দক্ষতাও অনেক বেড়েছে। আর এগুলোর পেছনে টি২০ ক্রিকেট একটা বড় অবদান রেখেছে।'