টি২০-তে ভারতের লজ্জার হার

প্রকাশ: ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

স্পোর্টস ডেস্ক

জায়ান্ট স্ট্ক্রিনে বড় করে লেখা 'ইন্ডিয়া নিড ২২০ রান'। বিশ্বসেরা ব্যাটিং লাইনআপ যে দলে আছে, সেই ভারতের লড়াই করার সামর্থ্য আছে। যেমনটি তারা করে দেখিয়েছিল আড়াই বছর আগে। ২০১৬ সালের ২৭ আগস্ট লুডারহিলে উইন্ডিজের ২৪৫ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে মহেন্দ্র সিং ধোনি-রোহিত শর্মারা করেছিলেন ২৪৪ রান। মাত্র ১ রানে হারলেও ওই ম্যাচের স্মৃতিটাই যেন ঘুরেফিরে আসছিল ভারতীয় সমর্থকদের মনে। কিন্তু ওয়েলিংটনে গতকাল কোনো লড়াই করতে পারেনি বিরাট কোহলিহীন ভারত। প্রতিদ্বন্দ্বিতা তো দূরে থাক, টি২০-তে লজ্জার হারের রেকর্ড গড়েছে তারা। ওপেনার টিম সেইফার্টের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের পর বল হাতে টিম সাউদির গতি ও সুইং-জাদু। প্রথম টি২০-তে ৮০ রানে হেরেছে ভারত। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে রানের দিক দিয়ে এটা ভারতের সবচেয়ে বড় হার। আগেরটি ছিল অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। ২০১০ সালে ব্রিজটাউনে অসিদের কাছে হেরেছিল ৪৯ রানে। ২২০ রানের লক্ষ্যে খেলতে নামা সফরকারীরা ১৯.২ ওভারে ১৩৯ রানে অলআউট হয়। অষ্টমবারের মতো টি২০-তে পুরো ওভার খেলতে পারেনি ভারত। আগামীকাল অকল্যান্ডে দ্বিতীয় টি২০ অনুষ্ঠিত হবে।

টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা। আগে ব্যাট পেয়ে যেন ওয়ানডেতে হারের যন্ত্রণা ভোলার মিশনে নামে কিউইরা। বিশেষ করে ওপেনার সেইফার্ট ছিলেন বিধ্বংসী। টি২০-তে আগের আট ম্যাচে সেইফার্টের সর্বোচ্চ রান ছিল ১৪। এদিন এই ওপেনার নিজেকে ছাপিয়ে গেছেন। ৮৪ রানে থামে তার বিধ্বংসী ইনিংস। তার ৪৩ বলের ইনিংসটি সাজানো ছিল সাতটি চার ও ছয়টি ছয়ের সৌজন্যে। টি২০-তে কিউইরা তৃতীয় সর্বোচ্চ স্কোর গড়ে শেষ দিকে কুগেলিনের ছোট ঝড়ে। মাত্র সাত বলে হার-না-মানা ২০ রান করা কুগেলিনের ইনিংসে ছিল তিনটি চার ও একটি ছয়। মুনরো, উইলিয়ামসন ও টেইলরদের ছোট ছোট ইনিংসে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২১৯ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে নিউজিল্যান্ড।

টি২০-তে এত বেশি রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড নেই ভারতের। ক'দিন আগে ওয়ানডেতে কিউইদের উড়িয়ে দেওয়া ভারত নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে। বড় কোনো জুটি গড়তে পারেনি তারা। সাউদি, ফার্গুসন, স্যান্টনারদের বিপক্ষে দাঁড়াতেই পারেননি রোহিতরা। লড়াই একটু করেছেন ধোনি। তার ব্যাট থেকে আসে ৩৯ রান। ১৩৯ রানে ভারতকে গুটিয়ে দিতে কার্যকর ভূমিকা রাখেন সাউদি। ১৭ রানে ৩ উইকেট নেন তিনি।