ঢাকার প্রেরণায় প্রাথমিক পর্ব

প্রকাশ: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯     আপডেট: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ঢাকার প্রেরণায় প্রাথমিক পর্ব

শিরোপা লড়াইয়ে নামার আগে ঢাকা ডায়নামাইটসের দুই ক্যারিবিয়ান সুনিল নারিন ও আন্দ্রে রাসেলের অনুশীলন- বিসিবি

দোর্দণ্ড প্রতাপে এবারের বিপিএল শুরু করেছিল ঢাকা ডায়নামাইটস। টুর্নামেন্টের শুরু থেকে অনেকখানি সময় ধরে দখলে রেখেছিল পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থান। কিন্তু টুর্নামেন্টের মাঝপথে এসেই খেই হারায় গত আসরের রানার্সআপ দলটি। নিজেদের প্রথম পাঁচ ম্যাচে যাদের জয় ছিল চারটিতে, ১১ ম্যাচ শেষে তাদের জয়ের সংখ্যা দাঁড়ায় মাত্র পাঁচে। খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে প্রাথমিক পর্বের শেষ ম্যাচ জিতে শেষ দল হিসেবে প্লে-অফ নিশ্চিত করে সাকিব আল হাসানের দল। এলিমিনেটরে চিটাগং ভাইকিংস এবং দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে রংপুর রাইডার্সকে হারিয়ে সেই ঢাকাই আবারও নিশ্চিত করেছে বিপিএল ফাইনাল, যেখানে আজ সন্ধ্যায় তাদের প্রতিপক্ষ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

বিপিএল ফাইনাল ঢাকা ডায়নামাইটসের জন্য খুবই পরিচিত এক মঞ্চ। এর আগেও দুবার বিপিএলের ফাইনাল খেলেছে তারা। বিপিএলের চতুর্থ আসরের ফাইনালে রাজশাহী কিংসকে হারিয়ে শিরোপা ঘরে তুলেছিল দলটি। আর গত আসরে রংপুর রাইডার্সের কাছে হেরে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল রানার্সআপ হয়েই। তারকাসমৃদ্ধ দল নিয়েও এবার প্রাথমিক পর্বে যে সংগ্রাম করতে হয়েছে ঢাকাকে, ফাইনালে সেটিই দলের জন্য বড় অনুপ্রেরণা হবে বলে মনে করছেন ডায়নামাইটস কোচ খালেদ মাহমুদ সুজন।

ফাইনালের আগের দিন তিনি বলেন, 'আমরা আত্মবিশ্বাসী, কারণ প্রাথমিক পর্বে একটা সময় আমরা বেশ কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে গিয়েছিলাম। প্লে-অফে ওঠার জন্য আমাদের সমীকরণটা সহজ ছিল না। সেই কঠিন সময়টা কাটিয়েই আমরা এরপর ঘুরে দাঁড়িয়েছি। প্লে-অফ নিশ্চিত করার পর গত দুই ম্যাচেও আমরা জিতেছি। আশা করি, ফাইনালে এই ধারা আমরা ধরে রাখতে পারব।'

প্রতিপক্ষ হিসেবে কুমিল্লা এবারের বিপিএলে ঢাকার জন্য বেশ কঠিন এক নাম। প্রাথমিক পর্বে কুমিল্লার বিপক্ষে দুই ম্যাচের একটিতেও জিততে পারেনি ডায়নামাইটসরা। দলের চার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান, সুনিল নারিন, আন্দ্রে রাসেল, কাইরন পোলার্ডদের কেউই কুমিল্লার বিপক্ষে ম্যাচে ফল আনতে পারেননি ঢাকার পক্ষে। তবে ফাইনালে শুধু অলরাউন্ডারদের ওপর নির্ভর না করে দল হিসেবে ভালো খেলাটাই বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে ঢাকা কোচের কাছে। বললেন, 'চার অলরাউন্ডার খেলা সত্ত্বেও কুমিল্লার বিপক্ষে আমরা দুটি ম্যাচে হেরেছিলাম। তাই আমরা কেবল এই চারজনের ওপরই নির্ভর করে থাকছি না। জিততে চাইলে আমাদের দল হিসেবে পারফর্ম করতে হবে। আমরা জানি, প্রাথমিক পর্বের দুটি জয় তাদের মানসিকভাবে আমাদের চেয়ে এগিয়ে রাখছে। তবে আমরাও আত্মবিশ্বাসী আছি।'

এবারের আসরেই বিপিএলে ১০০ উইকেটের মাইলফলক ছুঁয়েছেন ঢাকার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ফাইনালে ঢাকার জয়ের জন্য বল হাতে সাকিবের চার ওভার রাখতে পারে বড় ভূমিকা। এই ম্যাচে দারুণ এক রেকর্ডও অপেক্ষা করে আছে সাকিবের জন্য। এবারের বিপিএলে এখন পর্যন্ত ২২ উইকেট শিকার করেছেন সাকিব। ফাইনালে আর এক উইকেট পেলেই বিপিএলের এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের রেকর্ডে নাম লেখাবেন তিনি। বিপিএলের পঞ্চম আসরেও ২২ উইকেট নিয়ে টুর্নামেন্ট শেষ করেছিলেন সাকিব। ২০১৫ বিপিএলে ২২ উইকেট পেয়েছিলেন ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার কেভন কুপারও।