'জয়টা হতে পারত আরও বড়'

প্রকাশ: ১৫ মার্চ ২০১৯      

সাখাওয়াত হোসেন জয় বিরাটনগর, নেপাল থেকে

'জয়টা হতে পারত আরও বড়'

ভুটানের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের ২ গোলদাতা। মৌসুমির গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর দ্বিতীয় গোলে জয় নিশ্চিত করেন অধিনায়ক সাবিনা (বাঁয়ে)- বাফুফে

বাবা আবদুল কাদের রাজমিস্ত্রি। ভোর হলেই বেরিয়ে যেতে হয় কাজে। বাবার কাছে সবচেয়ে আদুরে মিসরাত জাহান মৌসুমী। রংপুরে জন্ম হলেও বাবা-মায়ের সঙ্গে সাভারেই থাকেন মৌসুমী। ছোটবেলা থেকেই ফুটবলকে ভালোবাসেন। সব সময় বাবাকে পাশে পেয়েছেন। মেয়েকে ফুটবল খেলতে পাঠিয়ে অনেক কথাই শুনতে হয়েছে কাদেরকে। কিন্তু কারও নিষেধ শোনেননি। নিজের সিদ্ধান্তে অটল ছিলেন বলেই তার মেয়ে আজ লাল-সবুজের জার্সি গায়ে জড়িয়ে মাঠ মাতাচ্ছেন। যেমনটি মাতালেন বিরাটনগরের শহীদ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে গতকাল। সিরাজ জাহান স্বপ্না-তহুরা খাতুনদের মতো তারকারা পারেননি, পেরেছেন মৌসুমী। বাংলাদেশের সেমিফাইনালে ওঠার অন্যতম কারিগর তিনি। ভুটানকে ২-০ গোলে হারানো বাংলাদেশের সেরা পারফরমার মৌসুমী। জাতীয় দলে প্রথম আন্তর্জাতিক গোল তার। মৌসুমীর স্বপ্নিল আর সাবিনার একক নৈপুণ্যে গোল। তবুও অতৃপ্তি ভুটানকে আরও বড় ব্যবধানে হারাতে না পারার।

গ্রুপ 'এ'র প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ০-৩ গোলে হারিয়েছে নেপাল। সেমিফাইনালে ভারতকে এড়ানোর জন্য এদিন ভুটানের বিপক্ষে শুধু জয়ই নয়, ব্যবধানটা চার গোলের চেয়েছিল বাংলাদেশ। তখন আগামীকাল নেপালের সঙ্গে ড্র করলেই সেমিতে এড়ানো যেত সাফের বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের। এখন হিমালয়ের দেশকে হারাতেই হবে। ড্র করলেও গ্রুপ রানার্সআপ হবে। যদিও গতকাল ম্যাচ শেষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এই প্রশ্নটি এড়িয়ে যেতে চেয়েছেন কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। তবে তার কথায় উঠে এসেছে অতৃপ্তিও, 'মেয়েরা সর্বোচ্চ দিয়ে চেষ্টা করেছে। সুযোগ তৈরি হয়েছে, গোল আরও হতে পারত। তবে মেয়েদের খেলায় আমি সন্তুষ্ট। এক থেকে ৯০ মিনিট পর্যন্ত মেয়েরা একদমে খেলেছে। আমি আবারও বলছি, স্কোরলাইন আরও হতে পারত। দুই গোল হয়েছে আমি খুশি, তবে গোল আরও হতে পারত। আর চার গোল করার বিষয়টি মেয়েদের মাথায় ছিল। এখন গোল আর হয়নি, এটা নিয়ে কী বলব। এখন আর আলোচনা করেও কোনো লাভ নেই।' আফসোস কথাটি মানতে চাননি মৌসুমীও, 'আক্ষেপের কিছু নেই। কারণ নেপাল এই গ্রুপের অনেক শক্তিশালী দল। ওরা সেরাটা দিয়ে ভুটানকে হারিয়েছে। আমরাও চেষ্টা করেছি জয় পাওয়ার। আমরাও টার্গেট পূরণ করেছি। তবে গোল করার জন্য আমরা অনেক সুযোগ পেয়েছি। বেশি গোল হয়নি বলে মন খারাপের কিছু নেই। আসলে আমাদের এখন নেপালের সঙ্গে ম্যাচটিই গুরুত্বপূর্ণ।'

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই কাঙ্ক্ষিত গোলটি এনে দেন মৌসুমী। দলের হয়ে প্রথম গোল করতে পেরে রোমাঞ্চিত এ মিডফিল্ডার, 'দলের জন্য প্রথম গোল করতে পেরে আমার অনেক ভালো লাগছে। কেননা আমাদের জন্য প্রথম গোলটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এটা আমার মাধ্যমে হয়েছে এই জন্য আমি খুব খুশি। আর অন্য কারও মাধ্যমে হলেও খুশি হতাম।'

ভুটান ম্যাচের আগেই বাংলাদেশ নারী দলকে শুভকামনা জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দেয় স্প্যানিশ ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা লা লীগা। ইংরেজি অক্ষরে বাংলা বাক্যে এ সংস্থাটি লিখেছে, 'বাংলাদেশের অসামান্য মহিলা ফুটবল টিমকে জানাই অনেক অনেক শুভেচ্ছা। তোমাদের স্পিরিটকে করি স্যালুট। অল দ্য বেস্ট।' লা লীগার এমন শুভকামনার পরই সাবিনা খাতুনরা পেলেন ভুটানের বিপক্ষে জয়।