বিশ্বকাপের মঞ্চে দক্ষিণ আফ্রিকা যেন বরাবরই ট্র্যাজেডির নায়ক। সেই ১৯৯২ সালের আসর থেকে প্রতিবারই অনেক প্রত্যাশা সঙ্গী করে বিশ্বকাপে যায় তারা। শক্তি-সামর্থ্যে সমীহ জাগানিয়া দল নিয়ে বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম দাবিদার হিসেবেও প্রতিবার নাম থাকে তাদের। কিন্তু এরপরও বিশ্বকাপ মানেই দক্ষিণ আফ্রিকানদের জন্য হতাশার অপর নাম, যেখান থেকে প্রতিবারই তাদের ফিরতে হয় রিক্ত হস্তে। এবারের বিশ্বকাপেও অন্যতম ফেভারিট দক্ষিণ আফ্রিকা। পুরো দলই আছে দারুণ ছন্দে। কিন্তু বিশ্বকাপে ভালো করার চাপকে এবার আর কাছে ঘেঁষতে দিতে চান না দলের অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস।

১৯৯২ সালের বৃষ্টি আইনের হিসাব, ১৯৯৯ সালে সেমিতে অ্যালান ডোনাল্ডের পাগলাটে দৌড় কিংবা ২০০৩ সালে হিসাবের ভুল- নানারকম অদ্ভুত উপায়ে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। এ কারণে কখনও ফাইনাল খেলার ভাগ্যও হয়নি তাদের। তবে অতীতের সেসব রেকর্ড এবং ব্যর্থতা নিয়ে একদমই মাথা ঘামাতে চাইছেন না ডু প্লেসিস। ইংল্যান্ড রওনা দেওয়ার আগে সাংবাদিকদের ডু প্লেসিস বলেন, 'এর আগেও বিশ্বকাপ খেলেছি আমি, জানি সেখানে কতটা চাপ কাজ করে। তবে আমি চাই দলের সবাই চাপমুক্ত হয়ে খেলুক, ব্যর্থ হওয়ার ভয়কে মন থেকে সরিয়ে রাখুক। প্রত্যেক খেলোয়াড়কেই নিজের সামর্থ্যের সর্বোচ্চটা দিতে হবে, তাই আমি চাই সবাই নির্ভার থেকে মাঠে নামুক।'

আগের বিশ্বকাপগুলোতে প্রোটিয়াদের ভালো না করার ব্যাখ্যাটা তিনি দিলেন এভাবে, 'আগের আসরগুলোতে আমরা অতিমানবীয় কিছু করতে চেয়েছিলাম। আমরা বিশেষ কিছু দেখাতে চেয়েছিলাম, কিন্তু নিজেদের সেরা খেলাটা খেলতে পারিনি। তবে এবার আমরা কেবল নিজেদের খেলাটাতেই মনোযোগ দিতে চাই।' আগামী ৩০ মে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে নিজেদের বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে প্রোটিয়ারা।

মন্তব্য করুন