মৌসুমের প্রথম দুটি শিরোপা জিততে রীতিমতো মাটি কামড়ে লড়াই করতে হয়েছিল। লীগ কাপের ফাইনালে চেলসির বিপক্ষে জয় এসেছিল পেনাল্টি শুটআউটে। আর প্রিমিয়ার লীগে লিভারপুলের সঙ্গে সমানে সমানে লড়াই করতে হয়েছে লীগের শেষ দিন পর্যন্ত। তবে সেই তুলনায় মৌসুমের তৃতীয় শিরোপাটা যেন একরকম হেলায় জিতল ম্যানচেস্টার সিটি। এফএ কাপের ফাইনালে ওয়াটফোর্ডকে ৬-০ গোলে গুঁড়িয়ে দিয়ে ঠাঁই করে নিল ইতিহাসে। ইংলিশ ফুটবলের শতবর্ষী ইতিহাসের প্রথম দল হিসেবে গড়ল ট্রেবল জয়ের কীর্তি।

ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে শনিবার অনুষ্ঠিত ম্যাচে যেন গোল উৎসবে মেতেছিলেন পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা। একটা সময় তো গোলের উদযাপনেও আর খুব একটা আগ্রহ ছিল না স্প্যানিশ কোচের! দলের হয়ে এদিন স্কোরশিটে দু'বার করে নাম তুলেছেন রহিম স্টারলিং ও গ্যাব্রিয়েল হেসুস। বাকি দুই গোল করেছেন ডেভিড সিলভা ও কেভিন ডি ব্রুইন। ১৯০৩ সালের পর আর কোনো দলই এত বড় ব্যবধানে এফএ কাপের ফাইনাল জেতেনি। ১৯০২-০৩ মৌসুমের টুর্নামেন্টের ফাইনালে ডার্বি কাউন্টিকে একই ব্যবধানে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল বারি।

এদিন গোলের ভালো সুযোগ তৈরি করতে বেশ কিছুটা সময় অপেক্ষা করতে হয় সিটিজেনদের। তবে প্রথম ভালো সুযোগকেই গোলে রূপ দেয় তারা। স্টারলিংয়ের হেড থেকে ছয় গজ বক্সের মাথায় বাঁদিকে পাওয়া বল কোনাকুনি শটে জালে জড়ান ডেভিড সিলভা। ম্যানচেস্টার সিটির জার্সিতে এ বছর এটিই সিলভার প্রথম গোল। ৩৮তম মিনিটে গোলমুখে বার্নার্দো সিলভার বাড়ানো বল কঠিন কোণ থেকে টোকা দিয়ে জালে পাঠিয়েছিলেন হেসুস। জালে ঢুকতে যাওয়া বলে শট নেন স্টারলিং। শুরুতে স্টারলিংকেই গোলদাতা হিসেবে মনে করা হলেও পরে গোলটি স্কোরশিটে জমা হয় হেসুসের নামেই। প্রথমার্ধে ব্যবধানের আর পরিবর্তন হয়নি।

দ্বিতীয়ার্ধে যেন আরও বেশি আক্রমণাত্মক মেজাজে খেলতে থাকে সিটি। সুবাদে ৬১তম মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়ে। হেসুসের পাস থেকে গোলরক্ষককে পরাস্ত করে বল জালে জড়ান বদলি হিসেবে নামা বেলজিয়ান মিডফিল্ডার ডি ব্রুইন। ৬৮তম মিনিটে হেসুসের দ্বিতীয় এবং দলের চতুর্থ গোলের সঙ্গে সঙ্গেই একরকম নিশ্চিত হয়ে যায় সিটির জয়। ম্যাচের শেষ ছয় মিনিটে আরও দু'বার ওয়াটফোর্ডের জালে বল জড়ান স্টারলিং।

এমন এক দুর্দান্ত জয়ের পরদিনই অবশ্য মন খারাপের এক সংবাদ পেয়েছেন সিটিজেন সমর্থকরা। রোববার নিজের ম্যানচেস্টার সিটি অধ্যায়ের ইতি ঘোষণা করেছেন দলের অধিনায়ক ভিনসেন্ট কোম্পানি। ১১ বছর সিটির হয়ে খেলার পর অবশেষে আকাশি নীল জার্সি তুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এই বেলজিয়ান ডিফেন্ডার। গত ১১ বছরে ম্যানচেস্টার সিটির হয়ে চারটি ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ, দুটি এফএ কাপ ও চারটি লীগ কাপ শিরোপা জিতেছেন তিনি। ইত্তিহাদ ছেড়ে আবারও নিজের শিকড়ে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ৩৩ বছর বয়সী এই ফুটবলার। নিজের প্রথম ক্লাব আন্ডারলেখতে একই সঙ্গে খেলোয়াড় ও কোচের দায়িত্ব পালন করতে তিন বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন কোম্পানি।

মন্তব্য করুন