ঘোষণাটা আগেই ছিল, বাকি ছিল কেবল আনুষ্ঠানিকতা। সেটাও সেরে নিলেন দু'জন। তবে ইমরান তাহিরের চেয়ে জেপি ডুমিনির প্রেক্ষাপট একটু ভিন্ন। হয়তো অনেকে ধরে নিয়েছিলেন, ওয়ানডে ছাড়লেও আগামী বছর টি২০ বিশ্বকাপ পর্যন্ত থাকবেন ২২ গজে। কিন্তু এ যাত্রায় সেই অধ্যায়েরও সমাপ্তি টানলেন তিনি। সেক্ষেত্রে দক্ষিণ আফ্রিকার জার্সিতে আর দেখা যাবে না ডুমিনিকে। আর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামার আগে একদিনের ক্রিকেট থেকে বিদায়ের কথা বলেন তাহির। শেষটা যেন সুন্দর হয় সেই আশা ব্যক্ত করেছিলেন তিনি, 'দল হিসেবে আমাদের শেষটা রাঙাতে হবে। তবে খারাপ লাগছে আমি নিজেও আর ওয়ানডেতে থাকছি না। এতদিন যারা আমার পাশে ছিলেন সবাইকে ধন্যবাদ। আসলে সবসময় স্বপ্ন থাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা। দলকে ভালো কিছু উপহার দেওয়া। আমরা বিশ্বকাপে খুব একটা ভালো করতে পারিনি। তবে এ নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছু নেই।' ২০১১ সালে ওয়ানডে অভিষেক হয় তাহিরের। সে থেকে মোট ১০৭টি ওডিআই খেলেছেন তিনি। উইকেট নিয়েছেন ১৭৩টি।

এদিকে সব ফরম্যাটকে গুডবাই বলা ডুমিনিও যাওয়ার বেলায় একটু আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছেন। লম্বা একটা সময় দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে লড়েছেন। ক্রিকেটের বদৌলতে দেশকে এনে দেন অনেক সাফল্য। সেই প্রাণের অঙ্গন ছেড়ে যেতে কার-ই মন চায়। তার পরও এটাই তো নিয়ম, আজ হোক কাল একদিন তো গুডবাই বলতেই হবে। ডুমিনি গত কয়েক মাস চিন্তা করেই অবসরের এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, 'আমি গত কয়েক মাস ধরে এ বিষয় নিয়ে ভাবছি। শেষ পর্যন্ত মনে হলো এখন যাওয়ার সময়।'

ডুমিনি প্রোটিয়াদের হয়ে ১৯৯ ওয়ানডে, ৮১ টি২০ আর ৪৬ টেস্টে অংশ নিয়েছেন। দেশকে বড় কোনো সাফল্য এনে দিতে না পারলেও চেষ্টা করেছেন সর্বদা ইতিবাচক কিছু করতে। শেষ সময়ে যেন তেমনটাই মনে করিয়ে দিলেন ডুমিনি, 'চেষ্টা করেছি দলকে কিছু দিতে। হয়তো অনেক অপ্রাপ্তি আছে।'

মন্তব্য করুন