সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডকে পাওয়ার পরই কথার লড়াই শুরু করে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ানরা। উদ্দেশ্য, মাঠে নামার আগে মানসিকভাবে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করা। লড়াইয়ের সূচনা করেছেন নাথান লায়ন। অসি এই স্পিনারের মতে, প্রত্যাশার চাপটা পুরোপুরিই থাকবে ইংল্যান্ডের ওপর। আর অস্ট্রেলিয়া নাকি হাসিমুখে উপভোগের মন্ত্রে খেলতে নামবে। সেমিতে তাদের হারানোর কিছু নেই বলেও মনে করছেন লায়ন।

পরিস্থিতির বিচারে কিন্তু চাপে থাকার কথা অস্ট্রেলিয়ারই। গ্রুপের শেষ ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ব্যাটে-বলে ভালো করতে না পেরে হেরে বসেছে তারা। যে কারণে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থান ধরে রাখতে পারেনি। তাই সেমিতে এড়াতে পারেনি স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে। অথচ ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে জিতলে এ মাঠেই আগামীকাল মঙ্গলবার অপেক্ষাকৃত দুর্বল নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সেমিফাইনাল খেলত তারা। কিউইরা গ্রুপ পর্বে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করা বাকি তিন দলের একটির সঙ্গেও জিততে পারেনি। তাই অস্ট্রেলিয়া বড় সুযোগ নষ্ট করেছে বলেই ধরে নেওয়া যায়। এখন তাদের সেমিফাইনাল খেলতে যেতে হবে বার্মিংহাম। আগামী বৃহস্পতিবার এজবাস্টনে স্বাগতিকদের বিপক্ষে সেমিতে মুখোমুখি হবে অসিরা। তবে লায়নের মতো অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ও মিচেল স্টার্কও মনে করছেন, সেমিফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ কে সেটা অস্ট্রেলিয়ানদের কাছে কোনো গুরুত্ব বহন করে না। যারা আসবে তাদেরই হারাতে হবে।

ইংল্যান্ডকে প্রশংসা করেই কথার লড়াইয়ের সূচনা করেন লায়ন, 'তাদের (ইংল্যান্ড) দলে বিশ্বমানের খেলোয়াড়ে ভর্তি। কয়েক বছর ধরে র‌্যাংকিংয়ে এক নম্বরে আছে তারা। কাজেই ফেভারিট তারাই। আমাকে যদি জিজ্ঞাসা করা হয়, তাহলে আমি বলব, বিশ্বকাপ হারানোর ভয় তাদের। আমরা তো র‌্যাংকিংয়ে পাঁচ নম্বর (আসলে তৃতীয়)। আমরা আন্ডারডগ হিসেবে খেলতে নামব। তাই আমাদের হারানোর কিছু নেই। ইংল্যান্ডের মাটিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা সব সময়ই আমাদের জন্য রোমাঞ্চকর। সেই রোমাঞ্চ নিয়ে আমরা মাঠে নামব, প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব, উপভোগ করব। হাসিমুখে আমরা সেমিফাইনাল খেলতে নামব। আমাদের চেষ্টা থাকবে আজ (দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে) যে পারফরম্যান্স করেছি সেটার উন্নতি করা।' এ অফস্পিনার আরও যোগ করেন, 'আজ (শনিবার) আমাদের ছন্দটা একটু বাধাগ্রস্ত হয়েছে। তবে আমরা পেশাদার দল। ভালোভাবে প্রস্তুতি নিয়ে বৃহস্পতিবার মাঠে নামব। সেদিন অবশ্যই জ্বলে উঠব আমরা। আর অস্ট্রেলিয়ার সবার মতো আমিও মনে করি, এই বিশ্বকাপে অবশ্যই আমাদের জন্য বিশেষ কিছু অপেক্ষা করছে।'

অধিনায়ক ফিঞ্চ মনে করছেন, গ্রুপ পর্বে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয় সেমিতে তাদের সাহায্য করবে, 'সপ্তাহ দুয়েক আগে লর্ডসে আমরা ইংল্যান্ডের বিপক্ষে চমৎকার ক্রিকেট খেলেছিলাম। এ বিষয়টা সেমিফাইনালে অবশ্যই আমাদের বাড়তি আত্মবিশ্বাস জোগাবে। আর সেমিফাইনালে সামনে যে আসবে তাকেই তো হারাতে হবে। যদিও ইংল্যান্ড এখন চমৎকার ফর্মে আছে। তবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা মানেই আমাদের জন্য দারুণ রোমাঞ্চকর বিষয়। এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে সেরাটা দেওয়ার জন্য আমাদের সবাই মুখিয়ে থাকে। আশা করছি দারুণ একটি ম্যাচ হবে।' তারকা পেসার মিচেল স্টার্কের মাঝেও একই মনোভাব দেখা গেল, 'বিশ্বকাপ জিততে হলে সামনে যে আসবে তাকেই হারাতে হবে। সেটা সেমিফাইনাল হোক বা ফাইনাল, কিংবা প্রতিপক্ষ ভারত হোক বা যেই হোক। এটা বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল, অবশ্যই আমাদের জন্য বড় ম্যাচ। আশা করছি তাদের নকআউট করে দেব।'

মন্তব্য করুন