লজ্জার হার 'এ' দলের

চার দিনের ম্যাচ

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০১৯      

ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান 'এ' দল এবং চারদিনের ম্যাচ হওয়ায় একটু বেশিই হালকাভাবে নিয়ে ফেলেন নির্বাচকরা। কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটারের সঙ্গে নতুনদের নিয়ে তৃতীয় ক্যাটাগরির একটি দল নামিয়ে দেন ম্যাচ খেলতে। অচেনা প্রতিপক্ষকে হালকাভাবে নেওয়ার ফলও হাতেনাতে পেলেন তারা। খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে প্রথম চারদিনের ম্যাচে সফরকারী আফগানিস্তান 'এ' দলের কাছে ৭ উইকেটে হেরে গেল বাংলাদেশ 'এ' দল।

স্বাগতিক হয়েও অ্যাওয়ে সিরিজের পারফরম্যান্স করতে দেখা গেল বাংলাদেশকে। ব্যাটিং-বোলিং কোনো বিভাগেই সফরকারীদের টেক্কা দিতে পারেনি স্বাগতিকরা। প্রথম ইনিংসে এনামুল হক বিজয়ের সেঞ্চুরি (১২১) আর আফিফ হোসেনের হাফ সেঞ্চুরিতে (৫০) ৭৮.৩ ওভারে ২৫৩ রান করে বাংলাদেশ। জবাবে ক্রিকেটে নবাগত আফগানিস্তান অলআউটের আগে করে ২৫৭ রান। তাদের ইনিংসে সেঞ্চুরি বা হাফ সেঞ্চুরি না থাকলেও ১১ জনই কমবেশি রান করেন। চার রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতাই গড়তে পারেননি ইমরুল কায়েসরা। দ্বিতীয় ইনিংসে গুটিয়ে যায় ১৭৫ রানে। স্বাগতিক ব্যাটিং লাইনআপ একাই গুঁড়িয়ে দেন আফগান লেগ স্পিনার কাইস আহমেদ। ১৬.৪ ওভার বল করে ৬৫ রানে ৭ উইকেট তার। প্রথম ইনিংসেও তিন উইকেট পান এই রিস্ট স্পিনার। ম্যাচে ১০ উইকেট নিয়ে সেরা পারফরম্যান্সের পুরস্কার যায় কাইসের দখলে। চতুর্থ ও শেষ দিন ১৭৩ রানের টার্গেটে সহজেই পৌঁছে যায় আফগানিস্তান 'এ' দল। ইব্রাহিম জাদরান ৭৬ ও অধিনায়ক নাসির জামাল ৫৯ রান করেন। বাংলাদেশ 'এ' দলের দলের এই হারে নড়েচড়ে বসলেন নির্বাচকরা। মিনহাজুল আবেদীন নান্নু গতকাল বলেন, 'শক্তিমত্তা বোঝার জন্যই বেশিরভাগ এইচপি খেলোয়াড়দের নিয়ে দলটা করা হয়েছিল। পরের ম্যাচের জন্য নতুন দল দেব। আশা করি ওই ম্যাচে ভালো করবে।'