টু কি টা কি

প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০১৯

প্রথম বলেই

রিভিউ শেষ!

ম্যাচের প্রথম বলটা ভুবনেশ্বর কুমার দিয়েছিলেন গুড লেন্থে। মিডল স্টাম্পের লাইনে পিচ করা বলটা ফ্রন্টফুটে এসে ঠেকাতে চেয়েছিলেন নিউজিল্যান্ড ওপেনার মার্টিন গাপটিল। কিন্তু ব্যাটকে ফাঁকি দিয়ে বল লাগল প্যাডে, সমস্বরে আউটের আবেদন উঠল ভারতের তরফ থেকে। তবে সেই আবেদনে সাড়া আসেনি আম্পায়ারের কাছ থেকে। বিরাট কোহলি কিছুটা সময় নিলেন, আলোচনা করলেন মহেন্দ্র সিং ধোনির সঙ্গে। এরপর একদম শেষ মুহূর্তে চাইলেন রিভিউ। এবারের বিশ্বকাপে দু'বার প্রথম বলে আউট হয়েছেন গাপটিল, আরও একবার সেই ভাগ্য বরণ করবেন কি-না সেটা তখন নির্ভর করছে প্রযুক্তির ওপর। টিভি আম্পায়ার রড টাকার বল ট্র্যাকিং দেখলেন, দেখলেন দর্শকরাও। বল মিস করে গেছে লেগ স্টাম্প। গাপটিল অতঃপর ক্রিজেই রইলেন, রইল না ভারতের একমাত্র রিভিউটি।



জয়াবর্ধনের পাশে উইলিয়ামসন

২০০৭ বিশ্বকাপটা দুর্দান্ত কেটেছিল মাহেলা জয়াবর্ধনের। শ্রীলংকার এই ব্যাটিং গ্রেট ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে অনুষ্ঠিত সেই বিশ্বকাপে ছিলেন শ্রীলংকার অধিনায়ক। তার নেতৃত্বে দল খেলেছিল টুর্নামেন্টের ফাইনালে। শিরোপা যদিও হাতে ওঠেনি, সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল রানার্সআপ হয়েই। তবে ব্যাট হাতে জয়াবর্ধনে করেছিলেন ৫৪৮ রান, বিশ্বকাপের কোনো আসরে অধিনায়ক হিসেবে যা সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। গতকাল সেই রেকর্ডে জয়াবর্ধনের পাশে বসেছেন নিউজিল্যান্ডের কেন উইলিয়ামসন।

প্রথম সেমিফাইনালে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে গতকাল ৬৭ রান করে আউট হয়েছেন কিউই অধিনায়ক। আর এই ইনিংসের সুবাদে এবারের বিশ্বকাপে তার রান দাঁড়িয়েছে ৫৪৮। অধিনায়ক হিসেবে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডে জয়াবর্ধনেকে স্পর্শ করাই কেবল নয়, আরও একটি জায়গায় জয়াবর্ধনের মতোই নিজের নামটা সবার ওপরে তুলেছেন তিনি। ২০০৭ বিশ্বকাপে জয়াবর্ধনের করা ৫৪৮ রান এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের এক আসরে কোনো লংকান ব্যাটসম্যানের সর্বোচ্চ। দেশের হয়ে এক বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রানের নতুন রেকর্ডটা গতকাল গড়ে ফেলেছেন উইলিয়ামসনও, ভেঙেছেন ২০১৫ আসরে মার্টিন গাপটিলের করা ৫৪৭ রানের রেকর্ড।



ওভার থ্রো

আবার থ্রো!

৪৬তম ওভারের চতুর্থ বল। জাসপ্রিত বুমরাহকে ফ্লিক করার চেষ্টাই হয়তো ছিল রস টেলরের। কিন্তু ব্যাটের কানায় লেগে বল দৌড়াল থার্ডম্যানের দিকে। যুজবেন্দ্র চাহাল বল ধরলেন, থ্রো করলেন। কিন্তু তার সেই থ্রো হাতে জমাতে পারলেন না মহেন্দ্র সিং ধোনি। বল চলে গেল মিড উইকেটে। সেখানে থাকা ফিল্ডার এবার থ্রোটা করলেন নন-স্ট্রাইকিং প্রান্তে। থ্রো আসতে দেখে বুমরাহ আগেই সরে গেছেন, তাই সেখানেও বল ধরা হলো না কারোর। ফিল্ডারদের এই বল ছোড়াছুড়ি খেলার পুরো সুবিধা তুলতে একদমই ভুল করেননি টেলর আর তার সঙ্গী টম লাথাম। দুটি ওভার থ্রোর সুযোগ নিয়ে তারা ততক্ষণে তুলে নিয়েছেন তিন রান। দর্শকদের হাসির খোরাক জোগানো এই ছোড়াছুড়ি মোটেই ভালোভাবে নেননি ভারত অধিনায়ক কোহলি। তার চোখেমুখে স্পষ্টতই ছিল ক্ষোভ। হাস্যকর ভুলে দুটি রান বেশি দিলে কোন অধিনায়কই বা খুশি হবেন!