যেমন ছিল রোডস অধ্যায়

প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০১৯

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বিশ্বকাপে নিজেদের পথচলা শেষ হওয়ার প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই প্রধান কোচ স্টিভ রোডসের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতেই ইংলিশ এই কোচের সঙ্গে আর কাজ না করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী বছরের অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ায় হতে যাওয়া টি২০ বিশ্বকাপ পর্যন্ত বিসিবির সঙ্গে চুক্তি ছিল ৫৬ বছর বয়সী এই কোচের। সেই হিসেবে প্রায় ১৫ মাস আগেই বাংলাদেশকে বিদায় বলতে হচ্ছে তাকে।

রোডসের সঙ্গে যে বিসিবি আর খুব বেশিদিন কাজ করতে আগ্রহী নয়, সে খবর দল বিশ্বকাপ সফরে থাকার সময়েই বাতাসে ভাসছিল। ধারণা করা হচ্ছিল, বিশ্বকাপের পর সূচিতে থাকা শ্রীলংকা সফরই হবে রোডসের শেষ অ্যাসাইনমেন্ট। কিন্তু বিসিবি সেই পর্যন্ত অপেক্ষা করতেও রাজি হয়নি। দল দেশে ফেরার পরপরই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে রোডস অধ্যায়ের সমাপ্তির বিষয়টি। বিশ্বকাপের পর দু'পক্ষের মধ্যে চুক্তি পর্যালোচনার যে সুযোগ ছিল, সেই সুযোগ কাজে লাগিয়েই আর একসঙ্গে কাজ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দু'পক্ষ।

গত বছরের জুনে দায়িত্ব নেওয়া রোডসের অধীনে বাংলাদেশ খেলেছে আটটি টেস্ট, ৩০টি ওয়ানডে ও ছয়টি টি২০। দায়িত্ব নেওয়ার পর রোডসের শুরুটা খুব ভালো হয়নি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্টে নিজেদের প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ অলআউট হয়েছিল ৪৩ রানে, ম্যাচটা হেরেছিল ইনিংস ও ২১৯ রানের বড় ব্যবধানে। পরের ম্যাচটাও ১৬৬ রানে সিরিজ খুইয়েছিল টাইগাররা। তবে ওয়ানডে সিরিজে অবশ্য ঘুরে দাঁড়ায় দল, তিন ম্যাচের সিরিজ জিতে নেয় ২-১ ব্যবধানে। তিন ম্যাচের টি২০ সিরিজটাও তারা জেতে একই ব্যবধানে। রোডসের অধীনের এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দেশের মাটিতেও টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজে হারিয়েছে বাংলাদেশ। এশিয়া কাপে খেলেছে ফাইনাল। এ ছাড়া বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে কোনো টুর্নামেন্টে নিজেদের প্রথম শিরোপাটাও বাংলাদেশ জিতেছে এই ইংলিশ কোচের সময়েই।

সব মিলিয়ে এই কোচের অধীনে খেলা আট টেস্টের তিনটিতে জিতেছে বাংলাদেশ, হেরেছে পাঁচটিতে। ৩০ ওয়ানডের মধ্যে ১৭ জয়ের বিপরীতে হার ১৩টিতে। আর ছয়টি টি২০ ম্যাচে তিনটি করে জয় ও হার। সামগ্রিকভাবে খুব একটা খারাপ বলার উপায় নেই রোডসের রেকর্ডকে। তবে বিশ্বকাপে দলের ব্যর্থতাই মূলত এই কোচের প্রস্থানের রাস্তাটা প্রশস্ত করে দিয়েছে। আপাতত দেখার বিষয়, রোডসের উত্তরসূরি হয়ে কে আসেন টাইগার শিবিরে!