মরগানরা রোমাঞ্চিত বিচলিতও

প্রকাশ: ১১ জুলাই ২০১৯

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রশ্নটা সোজাসাপ্টা। স্বাগতিক দল হিসেবে বিশ্বকাপ সেমিফাইনাল খেলতে নামার আগে ইংল্যান্ড কি রোমাঞ্চিত, বিচলিত নাকি কেবলই ম্যাচের মধ্যে মনোযোগী?

যে দল ২৭ বছর পর সেমিফাইনালে উঠেছে, দারুণ একটি স্কোয়াড নিয়ে প্রথমবারের মতো দেশকে বিশ্বকাপজয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছে, সে দলের অধিনায়কের স্বপ্ন পূরণের জন্য অতি উচ্ছ্বাস বা প্রত্যাশার চেপে বসা চাপ নিয়ে প্রকাশ্যে কিছু বলার কথা নয়। বেশিরভাগ অধিনায়কই 'আমরা শুধু ম্যাচেই ফোকাসড' বলতেন; কিন্তু ইয়ন মরগান ভেতরের বাস্তবতা আড়াল করলেন না। গতকাল সেমিফাইনাল-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে ইংল্যান্ড অধিনায়ক জবাব দিলেন কোনো রাখঢাক না রেখেই, 'এক্সাইটমেন্ট, নার্ভাসনেস, ফোকাসড- সবই আছে।' পরক্ষণেই অবশ্য এগিয়ে রাখলেন রোমাঞ্চটাকে। এবারের বিশ্বকাপ টপ ফেভারিট শুরু করলেও লীগ পর্বের একটা পর্যায়ে সেমিতে না ওঠার শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিল ইংল্যান্ড। শেষ দুটি ম্যাচ 'জিততেই হবে' চ্যালেঞ্জ নিয়ে খেলতে হয়েছে তাদের। ভারত আর নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে শেষ চারে জায়গা করার পর চ্যালেঞ্জ এখন ফাইনালে ওঠার। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে নামার আগে সে বিষয়টিই তুলে আনলেন মরগান, 'অন্য সবকিছুর চেয়ে রোমাঞ্চটা একটু বেশি। সবাই সেমিফাইনাল খেলতে মুখিয়ে আছে। গ্রুপ পর্বের একপর্যায়ে আমাদের এ জায়গায় আসাটা কঠিন মনে হচ্ছিল, প্রশ্ন উঠে গিয়েছিল। এ কারণে রোমাঞ্চটা আরও বেড়ে গেছে।' ইংল্যান্ড পা হড়কেছিল ২১ জুন শ্রীলংকার কাছে ২০ রানে হারার মাধ্যমে। এরপর ২৫ জুন লর্ডসে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারে মরগানরা। এর মধ্যে প্রথমটিতে ২৩২ রান তাড়া করার ব্যর্থতা ভুগিয়েছে বেশি। তবে হেডিংলির ওই ম্যাচটির দিক থেকে দেখলে দারুণভাবেই নিজেদের খেলায় ফিরে আসতে পেরেছে ইংল্যান্ড। মরগান বলছিলেন সে কথাই, 'শ্রীলংকার কাছে হারটা কষ্ট দিয়েছিল। ওই দিন আমরা নিজেদের সামর্থ্যের কাছে-কিনারেও খেলতে পারিনি। তবে সেই আঘাত কাটিয়ে আমরা যেমন দল ছিলাম, সেখানেই ফিরে এসেছি। তিন ম্যাচ আগের চেয়েও বেশি আত্মবিশ্বাসী আমরা, ভিন্ন একটি দল।' অস্ট্রেলিয়ার কাছে লীগ পর্বের ম্যাচে হেরে গেলেও এর আগে টানা দশ ম্যাচ জিতেছিল ইংল্যান্ড। দ্বিতীয়বার অ্যারন ফিঞ্চদের মুখোমুখি হওয়ার আগে সতীর্থদের বিশ্বকাপ-স্বপ্নে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন মরগান, যাতে চাপ তারা না নেন, 'মাঝে মাঝে আমি নিজেই এ দোষে দোষী হই, যেখানে আছি সে অবস্থানের কথা ভুলে যাই। তবে ব্যপারটাকে এভাবে নিতে হবে যে, আমরা এখন স্বপ্নের মধ্যে বেঁচে আছি। আগামীকালের ম্যাচটা তাই মুখে হাসি রেখে খেলতে হবে।' অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে লীগ পর্বের খেলায় মরগানের ব্যাটিং অ্যাপ্রোচের সমালোচনা করেছিলেন কেভিন পিটারসেন। সাবেক অধিনায়কের 'মনে হচ্ছে ও ভয় পাচ্ছে' মন্তব্যের সমালোচনার বিষয়ে আইরিশ বংশোদ্ভূত এ বাঁহাতি বলেন, 'সমালোচকরা সমালোচনা করবেই। তাদের ওটা করতেই হবে। করুক না।'