আগেই যুদ্ধ যুদ্ধ ভাব

প্রকাশ: ১৯ জুলাই ২০১৯

স্পোর্টস ডেস্ক

ক্রিকেটের সবচেয়ে আদি দ্বৈরথ- দ্য অ্যাশেজ। এ বছর নানা কারণেই শতবছরের অধিক পুরনো এই লড়াইটা ক্রিকেটাঙ্গনে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে থাকবে। যার মধ্যে একটা কারণ বিশ্বকাপ। ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো সোনালি ট্রফিটা উঁচিয়ে ধরার যে স্বাদ পেল ইংল্যান্ড। তাদের জন্য অ্যাশেজ বোধ হয় আরেকটা ইতিহাসের হাতছানি হয়ে আছে। বিশ্বজয়ের পাশাপাশি মর্যাদার অ্যাশেজ জিততে পারলে ইংলিশদের পায় কে! এক বছরের 'ডাবল' জয়ের রেকর্ড হয়ে যাবে তাদের। অবশ্য স্বপ্ন দেখা যতটা সহজ, বাস্তবে তার ফল পাওয়া ঠিক ততটাই যেন কঠিন। এখনও অ্যাশেজ শুরু হতে ১৩ দিন বাকি। তবু উত্তাপের কমতি নেই। ফুরফুরে মেজাজে থাকা ইংল্যান্ড মনেপ্রাণে চাচ্ছে এবারের অ্যাশেজও ঘরে রাখতে। অন্যদিকে বিশ্বকাপের ক্ষতে প্রলেপ দিতে অ্যাশেজের মুকুট ধরে রাখতে মরিয়া অস্ট্রেলিয়া। আগেভাগে দু'পক্ষের এমন যুদ্ধংদেহী মনোভাব কয়েকগুণে বাড়িয়ে দিচ্ছে লড়াইয়ের উত্তাপ।

দারুণ শুরুর পরও সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের কাছে হেরে বিদায় নেয় অস্ট্রেলিয়া। বিশ্বকাপের সেই হতাশা কিছুতেই লাঘব হচ্ছে না তাদের। সেজন্য হয়তো অ্যাশেজ জিতে মনের মধ্যে জ্বলতে থাকা আগুন নেভাতে চায় অসিরা। ভঙ্গুর হৃদয় নিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় ফেরার পর পরই নেমে পড়েন অ্যাশেজের অনুশীলনে। বিশ্বকাপে টানা ম্যাচ খেলার পরও খুব একটা বিশ্রামের সুযোগ নেই ওয়ার্নার-স্মিথদের। ২৫ সদস্যের গঠিত স্কোয়াডে রয়েছেন ক্যামেরন বেনক্রফটও। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বল টেম্পারিং-কাণ্ডে জড়িত থাকায় লম্বা একটা সময় ক্রিকেটের বাইরে কাটাতে হয় তাকে। শেষমেশ অ্যাশেজ সিরিজ হতে পারে তার ফেরার মঞ্চ। এ ছাড়া বিশ্বকাপের শেষ দিকে চোটে পড়া উসমান খাজা এবং মিশেল মার্শও আছেন এই দলে। তবে উইকেটরক্ষকের কাতারে আছেন তিনজন। দলনেতা টিম পেইনের সঙ্গে ম্যাথু ওয়েড আর অ্যালেক্স ক্যারি। ইংলিশ বিশ্বকাপে ক্যারির বীরত্ব দেখে অনেকেই মুগ্ধ হন। সেজন্য অ্যাশেজের মতো মহাগুরুত্বপূর্ণ সিরিজে তাকে রাখা। এ নিয়ে অসি নির্বাচক ট্রেভর হনসের ভাষ্য, 'সে নিজেকে প্রমাণ করেছে। আমরাও তার পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট। ব্যাট হাতে সে দুর্দান্ত। তবে গ্লাভস হাতে আগের চেয়ে অনেক উন্নতি করেছে। যেটা সত্যিই অসাধারণ।'

এদিকে অ্যাশেজের আগে ইংল্যান্ডও বেশ সতর্ক। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডসে একমাত্র টেস্টকে অ্যাশেজের পূর্ব-প্রস্তুতি হিসেবে নিয়েছে তারা। যদিও সে ম্যাচের জন্য ঘোষিত স্কোয়াডে দলের একাধিক তারকা নেই। বিশ্বকাপের নায়ক বেন স্টোকসকে বিশ্রাম দিয়েছে দলটি। সেইসঙ্গে রয়েছে চোটের ক্ষতও। বিশ্বকাপ চলাকালীন ইনজুরিতে পড়া দলের অন্যতম প্রধান পেসার জোফরা আর্চার ও মার্ক উডকে রাখতে হলো স্কোয়াডের বাইরে। তবে অ্যাশেজে তাদের পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী। অবশ্য ১ আগস্ট বার্মিংহাম টেস্টে দেখা যাবে না এ দুই পেসারকে। তবে আইরিশদের বিপক্ষে ডাক পেয়েছেন দীর্ঘদিন দলে জায়গা না পাওয়া স্টুয়ার্ট ব্রড। পাশাপাশি প্রথমবারের মতো নেওয়া হয়েছে হার্ডহিটার জেসন রয়কে।

১৮৮২-৮৩ থেকে হয়েছিল অ্যাশেজের আনুষ্ঠানিক যাত্রা। এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ৩৩ বার এই সিরিজ জিতেছে অস্ট্রেলিয়া, ৩২ বার ইংল্যান্ড। এবার জিতে সংখ্যাটা সমান করতে চান রুট-স্টোকসরা। বিশ্বকাপজয়ের হাসি নিয়ে রুটও দিলেন তেমন আভাস, 'বিশ্বকাপের পর অ্যাশেজ জেতাটা হবে নতুন চূড়া জয়ের মতো। আমরা এ নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে পরিকল্পনা করছি।' ইংল্যান্ড বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হলেও অ্যাশেজ তাদের কাছে অনেক বেশি গুরুত্ব বহন করে। যেমনটা বলেছেন বেন স্টোকস, 'আমরা বিশ্বচ্যাম্পিয়ন, তবে এখানেই থামতে চাই না। অ্যাশেজও জিততে চাই।'